কোন কিছু ভালো লাগে না কেন - ScienceBee প্রশ্নোত্তর

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির প্রশ্নোত্তর দুনিয়ায় আপনাকে স্বাগতম! প্রশ্ন-উত্তর দিয়ে জিতে নিন পুরস্কার, বিস্তারিত এখানে দেখুন।

0 টি ভোট
29 বার দেখা হয়েছে
"মনোবিজ্ঞান" বিভাগে করেছেন (120 পয়েন্ট)

1 উত্তর

0 টি ভোট
করেছেন (4,360 পয়েন্ট)

লেখকঃ নাদিয়া নাহরিন

কিছুই ভালো লাগে না—আজকাল অনেককেই বলতে শোনা যায় এটা। পড়াশোনা, অফিসের ব্যস্ততা কিংবা পারিবারিক জীবন—সবকিছুতেই যেন একধরনের বিরক্তি, খিটখিটে মেজাজ। কিশোর থেকে শুরু করে মাঝবয়সী মানুষের মধ্যেও এ সমস্যা দেখা দেয়। এমনকি সাত কিংবা আট বছরের একটি বাচ্চারও হতে পারে এ সমস্যা।

ভালো না লাগাটা কেন?

আপনি হয়তো বন্ধুদের সঙ্গে আছেন। বন্ধুদের মধ্য থেকে একজন আপনাকে নিয়ে মজার কিছু বলছেন, সেখানেও মেজাজ বিগড়ে গেল আপনার। অন্যরা যেখানে ঠাট্টা করছেন, আপনি সেখানে সহজেই রেগে উঠছেন। কেন এমন? এ বিষয়ে কথা হয় কাউন্সেলর মরিয়ম সুলতানার সঙ্গে। তিনি দীর্ঘদিন ঢাকা মেডিকেল এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোবিজ্ঞান বিভাগের কাউন্সেলর হিসেবে কাজ করেছেন। বর্তমানে অ্যাকশন ফর ডেভেলপমেন্টের কাউন্সেলর তিনি। মরিয়ম সুলতানা বলেন, ‘অতিরিক্ত কাজের চাপ, একঘেয়েমি বোধ, একাকিত্ব কিংবা প্রতিকূল পরিবেশ মানুষকে এমন সমস্যার দিকে ঠেলে দেয়। আর এ সমস্যা বেশি দেখা দেয় কৈশোর ও মধ্যবয়সে।’

 কিশোর-কিশোরীর ক্ষেত্রে অতিরিক্ত সংবেদনশীলতা থেকে এ সমস্যা দেখা দেয়। হয়তো পরিবারের নানা বিধিনিষেধে তারা হাঁপিয়ে ওঠে। আর বাকিদের ক্ষেত্রে সমস্যাটা দেখা দেয় অতিরিক্ত কর্মব্যস্ততা কিংবা সব সময় সফল হতেই হবে—এমন মনোভাব পোষণ করলে।

যাঁরা খুব ছোট পরিবারে বড় হয়ে ওঠেন, তাঁদের মধ্যেও অল্পতেই বিরক্ত হয়ে যাওয়ার প্রবণতা দেখা যায় বলে মনে করেন মরিয়ম সুলতানা। যেহেতু মানুষটি তাঁর সমবয়সী কারও সঙ্গে খোলাখুলি মেলামেশা করতে বা কথা বলতে পারছেন না, তাই তাঁর মধ্যে একাকিত্ব দেখা দেবে। ফলে একটা সময় সবকিছুর প্রতি তাঁর একটা অনীহা কাজ করবে। অল্পতেই তিনি হয়ে উঠবেন বিরক্ত।

 শিশুদের ক্ষেত্রেও অনেকটা তাই। স্কুল বা কোচিংয়ের বিভিন্ন চাপ, পরিবারের বিভিন্ন আদেশ তাদের মধ্যে অনীহা তৈরি করে। আর যেহেতু শহরে এরা বেড়ে ওঠে একাকিত্বের সঙ্গে, তাই অনেক শিশুও অল্পতেই খিটখিটে মেজাজ করে থাকে।

যা করা যায়

* যে কাজটি করতে ভালো লাগছে না, আপাতত সেটা করবেন না। মন ভালো থাকলে কাজটি এমনিতেই ভালো হবে।

* পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে রাগ না করে তাঁদের বুঝিয়ে বলুন।

* বন্ধুমহলেও রাগ না করে তাঁদের সঙ্গে খোলামেলা আলোচনা করতে পারেন, হয়তো আপনার এমন আচরণে বন্ধুরাও অনেকটা দূরে সরে গেছেন। সেই দূরত্বটা নিজে থেকেই কমিয়ে আনার চেষ্টা করুন।

* সঠিক সময়ে খাবার এবং ঘুমের অভ্যাস করুন। খাবার তালিকায় সবজি এবং যথেষ্ট পরিমাণে পানি রাখুন। আর ঘুমটা হতে হবে কমপক্ষে ৬ ঘণ্টার।

* ইয়োগা কিংবা নিয়মিত শরীরচর্চার ফলেও বিষণ্নতা কেটে যাবে। এ ছাড়া শরীরে রক্তপ্রবাহ এবং মাংসপেশি ঠিক থাকবে। বেশি কিছু না হলে প্রতিদিন সন্ধ্যায় অন্তত এক ঘণ্টা হাঁটার অভ্যাস করুন।

* অবসরে কোথাও বেড়িয়ে আসুন। চাইলে প্রতি সপ্তাহেই কোথাও ঘুরে আসতে পারেন। এতে মনের একঘেয়েমি কেটে উঠবে সহজেই।

* সমস্যাগুলোকে তালিকাভুক্ত করুন। নিজেকে জিজ্ঞেস করুন, আপনি কী করতে চান বা কোন ব্যাপারগুলো আপনাকে বাধা দিচ্ছে। নিজের কাজে দৃঢ়তা বজায় রাখুন।

* চাইলে কাউন্সেলরের সঙ্গেও কথা বলতে পারেন। এতে ব্যাপারটা অনেক সহজ হয়ে উঠবে।

* তাহলে এবার মনটা প্রফুল্ল করেই ফেলুন!

এই সমস্যার নানা উপসর্গ

* মেজাজ অল্পতেই খিটখিটে হয়ে থাকা, সঙ্গে সামান্য বিষয়েই রেগে ওঠা;

* পরিচিত কাউকেই যখন আর ভালো লাগে না, এমনকি কেউ যদি আপনার মঙ্গলের জন্যও কিছু বলে থাকেন;

* কাজে ঠিকমতো মনোযোগ না থাকা;

* ক্ষুধাহীনতা কিংবা অনেকের ক্ষেত্রে নিদ্রাহীনতা;

* সবকিছুতেই একধরনের অনীহা কাজ করা;

* অতিরিক্ত মানসিক চাপ বা চিন্তা করা।

সমস্যা থেকে বেরিয়ে আসার উপায়

এর থেকে পরিত্রাণের উপায়টি কিন্তু তেমন কঠিন কিছু নয়, এমনটাই মনে করেন মরিয়ম সুলতানা। বারবার যে বিষয়ের ওপর তিনি জোর দিয়েছেন তা হলো, সব সময় হাসিখুশি থাকা। একাকিত্ব এড়িয়ে চলতে হবে। তিনি বলেন, ‘সব সময় চেষ্টা করুন কারও সঙ্গে মিশতে। হয়তো প্রথমে তাঁকে ভালো লাগবে না, কিন্তু একটা সময় পর দেখবেন যে নতুন বন্ধুটিকে আপনার ভালো লাগতে শুরু করেছে। সবচেয়ে উপকার হবে আপনার মনের।’

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

+10 টি ভোট
2 টি উত্তর 377 বার দেখা হয়েছে
+6 টি ভোট
1 উত্তর 768 বার দেখা হয়েছে
04 জানুয়ারি 2021 "বিবিধ" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Samsun Nahar Priya (47,310 পয়েন্ট)
+4 টি ভোট
2 টি উত্তর 427 বার দেখা হয়েছে
+8 টি ভোট
1 উত্তর 165 বার দেখা হয়েছে

8,954 টি প্রশ্ন

14,913 টি উত্তর

4,489 টি মন্তব্য

103,420 জন সদস্য

66 জন অনলাইনে রয়েছে
4 জন সদস্য এবং 62 জন গেস্ট অনলাইনে
  1. রেয়াজুর রহমান রাজ

    3490 পয়েন্ট

  2. Jihadul Amin

    1390 পয়েন্ট

  3. Sazzad Ahammad Fahim

    1190 পয়েন্ট

  4. Anindo Brody

    810 পয়েন্ট

  5. Anupom

    670 পয়েন্ট

বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় উন্মুক্ত বিজ্ঞান প্রশ্নোত্তর সাইট সায়েন্স বী QnA তে আপনাকে স্বাগতম। এখানে যে কেউ প্রশ্ন, উত্তর দিতে পারে। উত্তর গ্রহণের ক্ষেত্রে অবশ্যই একাধিক সোর্স যাচাই করে নিবেন। অনেকগুলো, প্রায় ২০০+ এর উপর অনুত্তরিত প্রশ্ন থাকায় নতুন প্রশ্ন না করার এবং অনুত্তরিত প্রশ্ন গুলোর উত্তর দেওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি। প্রতিটি উত্তরের জন্য ৪০ পয়েন্ট, যে সবচেয়ে বেশি উত্তর দিবে সে ২০০ পয়েন্ট বোনাস পাবে।


Science-bee-qna

সর্বাপেক্ষা জনপ্রিয় ট্যাগসমূহ

মানুষ পানি ঘুম এইচএসসি-উদ্ভিদবিজ্ঞান এইচএসসি-প্রাণীবিজ্ঞান রোগ জীববিজ্ঞান পৃথিবী চোখ - শরীর পদার্থ রক্ত কী মোবাইল ক্ষতি আলো এইচএসসি-আইসিটি চিকিৎসা চুল মাথা মহাকাশ পদার্থবিজ্ঞান সূর্য বৈজ্ঞানিক প্রাণী স্বাস্থ্য প্রযুক্তি পার্থক্য কেন গরম কারণ ডিম রং #জানতে শীতকাল গণিত উপকারিতা খাওয়া কাজ #biology বৃষ্টি আগুন রাসায়নিক চাঁদ বিদ্যুৎ বিজ্ঞান রাত সাপ লাল সাদা উপায় খাবার দুধ ভয় আবিষ্কার শক্তি #ask গাছ ব্যাথা মশা ঠাণ্ডা হাত কি মনোবিজ্ঞান মাছ শব্দ গ্রহ কালো বৈশিষ্ট্য উদ্ভিদ সমস্যা পা রসায়ন মস্তিষ্ক ভাইরাস মেয়ে হলুদ স্বপ্ন মন আম পাখি বাতাস পাতা ব্যথা কান্না বিস্তারিত দাঁত গ্যাস বিড়াল রঙ নাক চার্জ হরমোন আকাশ তাপমাত্রা #science ঔষধ মৃত্যু চা
...