চাঁদগ্রহণ ও সূর্যগ্রহণ এর সাথে গর্ভবতী মহিলাদের কি সম্পর্ক? তখন সেই সময়টুকু মহিলাদের এত নিয়ম মেনে চলতে হয় কেনো? - ScienceBee প্রশ্নোত্তর

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির প্রশ্নোত্তর দুনিয়ায় আপনাকে স্বাগতম! প্রশ্ন-উত্তর দিয়ে জিতে নিন পুরস্কার, বিস্তারিত এখানে দেখুন।

+13 টি ভোট
626 বার দেখা হয়েছে
"চিন্তা ও দক্ষতা" বিভাগে করেছেন (10,860 পয়েন্ট)

2 উত্তর

+1 টি ভোট
করেছেন (10,860 পয়েন্ট)
Nishat Tasnim বিশ্বের বিভিন্ন দেশে গ্রহণ সম্পর্কে বিভিন্ন লোকজ বিশ্বাস ও কুসংস্কার প্রচলিত রয়েছে। সাধারণ মানুষ তো বটেই, গর্ভবতী নারীদেরকে তাদের গর্ভস্থ শিশুর সুরক্ষার জন্যে গ্রহণের সময় অতিরিক্ত কিছু সাবধানতা মেনে চলতে বলা হয়। যদিও বৈজ্ঞানিকভাবে গ্রহণের সঙ্গে গর্ভস্থ শিশুর ক্ষতির তেমন কোনো প্রমাণ পাওয়া যায় না।

এর মধ্যে কয়েকটি কুসংস্কার হলোঃ-

১. গর্ভবতী নারীরা গ্রহণ চলাকালে ছুরি, কাঁচি বা অন্য কোন ধারালো যন্ত্রপাতি ব্যবহার করতে পারবে না। এসব নিষেধাজ্ঞা না মানলে গর্ভস্থ শিশু ঠোঁটকাটা বা তালুকাটা অবস্থায় জন্মগ্রহণ করবে, এমন একটি কুসংস্কার ভারতে প্রচলিত রয়েছে। আবার মেক্সিকোতে ঠিক উল্টোটা ঘটে। সেখানে গ্রহণের কুপ্রভাব থেকে শিশুকে রক্ষা করার জন্য গর্ভবতী নারীরা ধাতব অনুষঙ্গ (যেমন- সেফটিপিন) পরা, পেটের কাছে ছুরি ধরে রাখা, লাল রঙের অন্তর্বাস পরা- এসব নিয়ম পালন করে থাকেন।

প্রকৃতপক্ষে জন্মগত ঠোঁট বা তালু কাটার সুনির্দিষ্ট কোনো কারণ না পাওয়া গেলেও, বংশগত, পরিবেশগত কারণ কিংবা কিছু ঔষধ বা রাসায়নিক পদার্থের প্রভাবে এটি হতে পারে বলে জানা যায়। তবে সূর্যগ্রহণ বা চন্দ্রগ্রহণের সাথে শিশুর এ ধরনের ত্রুটি নিয়ে জন্মানোর ঘটনার সম্পর্ক নিয়ে কোনো বিজ্ঞানসম্মত ব্যাখ্যা এখন পর্যন্ত পাওয়া যায়নি।

মানব ভ্রূণের ৬ষ্ঠ থেকে ১০ম সপ্তাহ বয়সে তার নাক, মুখের তালু এবং ঠোঁট তৈরি হয়। এসময় ছবিতে (পরের কমেন্টে) সবুজ এবং হলুদ রঙে নির্দেশিত অংশগুলো ডান ও বাম- দু’পাশ থেকে এসে মাঝ বরাবর মিলিত হয় এবং মুখের তালু ও ঠোঁট গঠন করে। কোনো কারণে দু’পাশের অংশগুলো মাঝে এসে মিলিত হতে বাধা পেলে ঐ অংশে ফাঁকা থেকে যায়। তখন একে আমরা ঠোঁটকাটা বা তালুকাটা বলে থাকি। এর সঙ্গে গ্রহণের কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই।

২. “গর্ভবতী নারীদেরকে গ্রহণ চলাকালে বিছানায় সোজা হয়ে শুয়ে থাকতে হবে, নইলে বিকলাঙ্গ শিশু জন্ম নিতে পারে”:

এটি একদমই বৈজ্ঞানিক ভিত্তিহীন একটি বিশ্বাস। তাছাড়া গর্ভাবস্থায় দীর্ঘসময় একইভাবে শুয়ে থাকা অস্বস্তিকর এবং কষ্টদায়কও বটে। তাই একজন গর্ভবতী মহিলা অন্য সময়ে যেভাবে চলাচল করেন বা শুয়ে থাকেন, গ্রহণের সময়েও ঠিক সেভাবেই চলতে পারবেন। তার শিশু তার জরায়ুর ভেতরেই সুরক্ষিত আছে। সুতরাং বিকলাঙ্গতা ঘটানোর মতো অন্য কোনো কারণ না থাকলে, শুধু গ্রহণের প্রভাবে শিশু বিকলাঙ্গ হয়ে জন্মগ্রহণ করবে- এমন আশঙ্কা অমূলক।

৩. "গর্ভবতী নারীরা সূর্যগ্রহণের সময় বাড়ির বাইরে গেলে এবং খালি চোখে গ্রহণ দেখলে গর্ভের শিশু বিকলাঙ্গ, অন্ধ বা দেখতে অসুন্দর হয়”:

পূর্ণ সূর্যগ্রহণের সময় যখন চাঁদ সূর্যকে সম্পূর্ণরূপে আড়াল করে ফেলে, তখন এর উজ্জ্বল জোতির্বলয় থেকে তড়িৎচৌম্বক বিকিরণ ঘটতে থাকে। বিজ্ঞানীরা গবেষণা করে দেখেছেন যে, এই বিকিরণ সূর্যের আলোর তীব্রতার তুলনায় অত্যন্ত ক্ষীণ। তাই এই বিকিরণ ১৫০ মিলিয়ন কিলোমিটার দূরত্ব পেরিয়ে, পৃথিবীর ঘন বায়ুমণ্ডল ভেদ করে এসে দর্শকের চোখে অন্ধত্ব সৃষ্টি করতে পারার কোনো সম্ভাবনা নেই।
0 টি ভোট
করেছেন (7,940 পয়েন্ট)

আমাদের সমাজে এ কথা চালু আছে যে, চন্দ্র ও সূর্যগ্রহণের সময় গর্ভবতী নারী কোনো কিছু কাটলে, ছিঁড়লে বাচ্চা ঠোঁটকাটা জন্মায়, কোনো কিছু ভাঙলে অথবা বাঁকা করলে সন্তান বিকলাঙ্গ হয়। আকাশের দিকে তাকালে চোখের আলো কমে যায়। গ্রহণের সময় কিছু খেতে হয় না। এ ধরনের যত কথা প্রচলিত আছে, তা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন  মিথ্যা।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

+13 টি ভোট
1 উত্তর 213 বার দেখা হয়েছে
0 টি ভোট
1 উত্তর 86 বার দেখা হয়েছে

9,621 টি প্রশ্ন

16,067 টি উত্তর

4,576 টি মন্তব্য

130,730 জন সদস্য

69 জন অনলাইনে রয়েছে
15 জন সদস্য এবং 54 জন গেস্ট অনলাইনে
  1. Msknirob

    6710 পয়েন্ট

  2. Md. Taseen Alam

    6050 পয়েন্ট

  3. Mohammed Rayhan

    2050 পয়েন্ট

  4. Jihadul Amin

    1150 পয়েন্ট

  5. shafah555

    860 পয়েন্ট

বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় উন্মুক্ত বিজ্ঞান প্রশ্নোত্তর সাইট সায়েন্স বী QnA তে আপনাকে স্বাগতম। এখানে যে কেউ প্রশ্ন, উত্তর দিতে পারে। উত্তর গ্রহণের ক্ষেত্রে অবশ্যই একাধিক সোর্স যাচাই করে নিবেন। অনেকগুলো, প্রায় ২০০+ এর উপর অনুত্তরিত প্রশ্ন থাকায় নতুন প্রশ্ন না করার এবং অনুত্তরিত প্রশ্ন গুলোর উত্তর দেওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি। প্রতিটি উত্তরের জন্য ৪০ পয়েন্ট, যে সবচেয়ে বেশি উত্তর দিবে সে ২০০ পয়েন্ট বোনাস পাবে।


Science-bee-qna

সর্বাপেক্ষা জনপ্রিয় ট্যাগসমূহ

মানুষ পানি ঘুম এইচএসসি-উদ্ভিদবিজ্ঞান এইচএসসি-প্রাণীবিজ্ঞান পৃথিবী জীববিজ্ঞান রোগ চোখ - পদার্থ শরীর রক্ত আলো কী মোবাইল ক্ষতি চিকিৎসা চুল এইচএসসি-আইসিটি মহাকাশ পদার্থবিজ্ঞান বৈজ্ঞানিক মাথা সূর্য স্বাস্থ্য পার্থক্য প্রাণী প্রযুক্তি রাসায়নিক গণিত খাওয়া কেন ডিম বিজ্ঞান গরম কারণ #biology বৃষ্টি #ask রং চাঁদ #জানতে শীতকাল উপকারিতা কাজ বিদ্যুৎ আগুন সাদা লাল রাত সাপ উপায় শক্তি মনোবিজ্ঞান দুধ গাছ হাত ব্যাথা ভয় আবিষ্কার খাবার মশা শব্দ মাছ #science গ্রহ ঠাণ্ডা কি মস্তিষ্ক কালো পা বৈশিষ্ট্য স্বপ্ন সমস্যা উদ্ভিদ বাতাস রঙ হলুদ মন রসায়ন মেয়ে ভাইরাস আম বিস্তারিত পাতা আকাশ তাপমাত্রা ব্যথা ঔষধ পাখি মৃত্যু চার্জ দাঁত গ্যাস কান্না নাক হরমোন বিড়াল বাচ্চা
...