আমরা কেন পৃথিবীর গতি অনুভব করতে পারি না? - ScienceBee প্রশ্নোত্তর

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির প্রশ্নোত্তর দুনিয়ায় আপনাকে স্বাগতম! প্রশ্ন-উত্তর দিয়ে জিতে নিন পুরস্কার, বিস্তারিত এখানে দেখুন।

+8 টি ভোট
5,094 বার দেখা হয়েছে
"পদার্থবিজ্ঞান" বিভাগে করেছেন (123,340 পয়েন্ট)

6 উত্তর

+5 টি ভোট
করেছেন (105,560 পয়েন্ট)
পৃথিবীর আবর্তন গতি থাকার কারণে আমরা কেন পৃথিবীপৃষ্ঠ থেকে ছিটকে পড়ি না বা তা অনুভব করি না।

এর কয়েকটি কারণ হলো:
 ১.ভূপৃষ্ঠে অবস্থান করার কারণে মানুষ, জীবজন্তু, বায়ুমণ্ডল প্রভৃতি পৃথিবীর সঙ্গে একই গতিতে আবর্তন করছে, তাই আমরা পৃথিবীর আবর্তন গতি অনুভব করতে পারি না।
 ২.ভূপৃষ্ঠে অবস্থিত সকল বস্তুকে পৃথিবী অভিকর্ষ বল দ্বারা নিজের কেন্দ্রের দিকে আকর্ষণ করছে, তাই আমরা পৃথিবীপৃষ্ঠ থেকে ছিটকে পড়ি না।
৩.পৃথিবীর আয়তনের তুলনায় আমরা এত বেশি ক্ষুদ্র যে এই গতি অনুভব করিনা বা ছিটকে পড়ি না। ৪.পৃথিবীর প্রতিটি স্থানের আবর্তন গতি সুনির্দিষ্ট তাই আমরা গতি অনুভব করি না।
৫.দুটি বস্তুর মধ্যে একটি যদি দাঁড়িয়ে থাকে এবং অন্যটি যদি চলতে থাকে তাহলে বোঝা যায় তার গতি আছে। এভাবে পৃথিবীর সামনে স্থির বা সমান কোনো বস্তু নেই যার সাপেক্ষে আমরা পৃথিবীর আবর্তন গতি বুঝতে পারি না।
+3 টি ভোট
করেছেন (180 পয়েন্ট)
পৃথিবী নিজ অক্ষের চারদিকে ২৪ ঘন্টায় একবার ঘুরছে। এর ফলে বিষুবীয় অঞ্চলে যারা অবস্থান করছে তারা ঘন্টায় ১৬০০ কিলোমিটার হারে পৃথিবীর সাথে ঘুরছে। তাছাড়া, পৃথিবী সূর্যের চারদিকে ঘন্টায় ১ লাখ ১০ হাজার কিলোমিটার বেগে ঘুরছে। আবার সূর্য তার গ্রহগুলো নিয়ে গ্যালাক্সিতে ঘন্টায় ৮ লাখ ২৮ হাজার কিলোমিটার বেগে ঘুরছে। এত বিপুল গতিতে ধাবমান থাকার পরেও আমরা এই গতি অনুভব করতে পারি না। অথচ বাসে কিংবা ট্রেনে কিংবা অন্যান্য বাহনে এর তুলনায় তুচ্ছাতিতুচ্ছ গতিতে ভ্রমণ করেও আমরা বুঝতে পারি। আমাদের শরীরের উপর দিয়ে প্রচন্ড ধকল বয়ে যায়। কিন্তু কেন?

যখন একটি বাস বা ট্রেন গতিশীল থাকে তখন এটি অধিকাংশ ক্ষেত্রেই সুষম বেগে চলে না। অর্থাৎ সময়ের সাথে এর বেগ পরিবর্তিত হয়। যেমন: একটি বাস এখন হয়তো ৬০ কিলোমিটার/ঘন্টায় চলল, পরক্ষণে ৭০ কিলোমিটার/ঘন্টা চলল। তাহলে এর বেগের পরিবর্তনটুকু আমরা অনুধাবন করতে পারব। সময়ের সাথে বেগের পরিবর্তনের হারকে ত্বরণ বলা হয়। আমরা বেগ অনুভব করতে পারি না। বেগের পরিবর্তনের হার অর্থাৎ ত্বরণ অনুভব করতে পারি। যদি বেগের পরিবর্তন না হয় তাহলে বেগের পরিমান যত বেশীই হোক না কেন তা অনুভবক্ষম হবে না এবং আমাদের শরীরে তার কোনো প্রভাব পড়বে না। মানুষ্যসৃষ্ট সবগতিশীল বস্তুই কমবেশী অসম বেগে গতিশীল হয়, অর্থাৎ সর্বদা কিছু না কিছু ত্বরণ হয়েই থাকে। আবার যদি বেগের মান মোটামুটি সুষম থাকেও তবু এর দিকটি পরিবর্তিত হয়ে যায়। স্কুলে আমরা যারা পদার্থ বিজ্ঞানের একেবারে প্রাথমিক আলোচনা পড়েছি তারা সবাই জানি, বেগের মান বা দিক বা উভয়ই পরিবর্তিত হলে ত্বরণ ঘটে। কাজেই বেগের মান সুষম হয়ে যদি দিক পরিবর্তিত হয় তবুও আমরা সেই গতি অনুভব করতে পারব। মানবসৃষ্ট প্রতিটি বাহনই কমবেশী দিক পরিবর্তন করে। শুধু তাই নয়, চলতে চলতে এতে কমবেশী ঝাঁকুনি তৈরি হয় যেটিও বেগের দিক পরিবর্তনসূচক। কিন্তু যদি বেগের মান ও দিক স্থির থাকে তাহলে আমরা তা অনুভব করব না। যেমন: স্থির সমুদ্রে জাহাজ অনেকসময় বেশ সুষম বেগে চলে। তাই জাহাজের কেবিনে শুয়ে চলন্ত জাহাজকে আমাদের স্থিরই মনে হবে।

অপরদিকে, পৃথিবীর নিজের যেসব গতি সেগুলোর সবই অত্যন্ত সুষম, তাই এদের গতি অনুভব করা যায় না। তারপরও যদি পৃথিবীতে আমাদের পরিপার্শ্বের বিভিন্ন বস্তু বিভিন্ন বেগে গতিশীল থাকত তবুও আমরা বেগ বুঝতে পারতাম, একটির সাপেক্ষে অপরটির অবস্থান পরিবর্তনের কারণে। কিন্তু পৃথিবীর পৃষ্ঠের সবকিছুই পৃথিবীর সাথে একই বেগে গতিশীল। তাই পৃথিবীর বেগের বোঝার উপায় নেই। এতক্ষণে হয়তো ভাবছেন,পৃথিবীর কোনো গতিই সরলরৈখিক নয় এবং প্রায় সবধরনের গতিই ঘূর্ণন গতি। যেহেতু ঘূর্ণায়মান পৃথিবীর বেগের ক্ষেত্রে দিকটি প্রতিনিয়ত পরিবর্তন হচ্ছে তাহলেতো তা অনুভব করতে পারার কথা। এই ক্ষেত্রে বলতে হয়, পৃথিবীর গতিগুলো ঘূর্ণন গতি হলেও এদের বক্রতা খুবই কম। একটি বৃত্ত যত বিশাল হবে তার বক্রতা ততোই কম হবে। মানুষে সাপেক্ষে পৃথিবীর এই বক্রতাকে সরলরেখাই ধরে নেয়া যায়। সেই ক্ষেত্রে যেটুকু ত্বরণের প্রভাব আমাদের উপর পড়বে তা অনুভবক্ষম হবে না।

পৃথিবীর গতি অনুভব করা না পারায় আগেরকার মানুষ বিভ্রান্ত হয়েছে। মানুষ মনে করেছে পৃথিবী স্থির এবং এর আকাশে বিভিন্ন বস্তুর অবস্থান বদলাতে দেখে মনে করেছে পৃথিবী মহাবিশ্বের কেন্দ্র এবং অন্যান্য বস্তুগুলো পৃথিবীকে কেন্দ্র করে ঘুরছে। মানুষের সেই বিশ্বাস ভাঙ্গতে শুরু করেছে কেবল চার শতাব্দী আগে, টেলিস্কোপের মাধ্যমে আকাশ পর্যবেক্ষণ শুরুর মধ্য দিয়ে। যার সবচেয়ে বড় অবদান বিজ্ঞানী গ্যালিলিও’র।

©বিজ্ঞান পত্রিকা
0 টি ভোট
করেছেন (135,480 পয়েন্ট)
১.ভূপৃষ্ঠে অবস্থান করার কারণে মানুষ, জীবজন্তু, বায়ুমণ্ডল প্রভৃতি পৃথিবীর সঙ্গে একই গতিতে আবর্তন করছে, তাই আমরা পৃথিবীর আবর্তন গতি অনুভব করতে পারি না।

২.ভূপৃষ্ঠে অবস্থিত সকল বস্তুকে পৃথিবী অভিকর্ষ বল দ্বারা নিজের কেন্দ্রের দিকে আকর্ষণ করছে, তাই আমরা পৃথিবীপৃষ্ঠ থেকে ছিটকে পড়ি না। ৩.পৃথিবীর আয়তনের তুলনায় আমরা এত বেশি ক্ষুদ্র যে এই গতি অনুভব করিনা বা ছিটকে পড়ি না। ৪.পৃথিবীর প্রতিটি স্থানের আবর্তন গতি সুনির্দিষ্ট তাই আমরা গতি অনুভব করি না।

৫.দুটি বস্তুর মধ্যে একটি যদি দাঁড়িয়ে থাকে এবং অন্যটি যদি চলতে থাকে তাহলে বোঝা যায় তার গতি আছে। এভাবে পৃথিবীর সামনে স্থির বা সমান কোনো বস্তু নেই যার সাপেক্ষে আমরা পৃথিবীর আবর্তন গতি < বুঝতে পারি না।
0 টি ভোট
করেছেন (33,350 পয়েন্ট)
পৃথিবীর নিজের অক্ষের চারিদিকে ঘুরতে সময় লাগে ২৩ ঘণ্টা ৫৬ মিনিট । পৃথিবীর পরিধি প্রায় ৪০, ০৭৫ কিলোমিটার। সুতরাং নিরক্ষরেখার কাছে ঘূর্ণন গতি প্রায় ৪৬০ মিটার / সেকেন্ড ।

এত তীব্র গতিতে প্রতি মুহূর্তে ঘুরে চলা সত্ত্বেও আমরা তবে এমনভাবে ছিটকে যাই না কেন ?


আসলে এখানে আমাদের সহায়তা করে সেই বিশেষ অভিকেন্দ্র বল । তবে নাগরদোলার মত এটা কোন শক্ত দড়ি নয় । এটি হল পৃথিবীর মাধ্যাকর্ষণ বল । এই মাধ্যাকর্ষণ বল আমাদের ছিটকে যেতে বাধা প্রদান করে।

এবার প্রশ্ন হল আমরা এই ঘূর্ণন অনুভব করতে পারি না কেন ?

আপনি একটা এরোপ্লেনে উঠে কোথাও যাচ্ছেন । এরোপ্লেনটা আকাশে তার উড়ান শুরু করার পর আপনি কি তার গতিকে অনুভব করতে পারেন ? এর কারণ হল প্লেনটি সমান বেগে উড়ে যাচ্ছে আর আপনিও প্লেনের সাথে পাল্লা দিয়ে একই গতিবেগে ছুটে যাচ্ছেন । তবে প্লেনটা মাটি স্পর্শ করার সময় আমরা সেই বেগ অনুভব করতে পারি কেন ? কারণ প্লেনটি আস্তে আস্তে তার গতিবেগ কমিয়ে নিজেকে থামানোর চেষ্টা করছে এবং আপনার শরীর জাড্য ধর্মকে (inertia ) মান্যতা দিয়ে নিজের বেগের পরিবর্তন করতে বাঁধা দিচ্ছে। এরফলে আমরা তখন ঝাঁকুনি অনুভব করব।

পৃথিবীর ক্ষেত্রেও একই ঘটনা ঘটছে । পৃথিবী সমান গতিবেগে নিজের অক্ষের চারিদিকে ঘুরে যাচ্ছে এবং আমরা ও আমাদের পরিবেশ তার অঙ্গ হিসাবে ঘুরছে । তাই আমরা পৃথিবীর ঘূর্ণনকে অনুভব করতে পারি না।
0 টি ভোট
করেছেন (9,610 পয়েন্ট)

পৃথিবী যখন ঘুরতে থাকে, তখন এর পৃষ্ঠের সবকিছু নিয়ে ঘোরে। অর্থাৎ, আমরাও এর সাথে সাথে একই বেগে ঘুরছি। তাই পৃথিবী আমাদের উপরে তার ঘূর্ণনের দিকে কোন বল প্রয়োগ করছে না।

 কাজেই সেই বলটি অনুভব না করায় আমরা পৃথিবীর ঘূর্ণনও অনুভব করি না।  

ঠিক যেমনটা হয় লিফটের তার ছিড়ে গেলে!

0 টি ভোট
করেছেন (1,270 পয়েন্ট)
পৃথিবীতে এখন পর্যন্ত রেকর্ড করা ঘূর্নিঝড়ে বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিলো ঘটায় ৩৪৫ কিলোমিটার। এতো বেগের বাতাস যে অঞ্চল দিয়ে বয়ে গিয়েছিলো সেই অঞ্চলকে লন্ডভন্ড করে দিয়েছিলো। তবে ইন্টারেষ্টিক বিষয় হচ্ছে আমরা এর কয়েকগুন বেশি গতিবেগে ঘুড়ছি। কারন পৃথিবী তার নিজ অক্ষে ঘন্টায় ১৬০০ কিলোমিটার বেগে ঘুরছে। কিন্তু পৃথিবী ঘুর্ণন আমরা বুঝতে পারিনা কেনো? এই বিষয়টি বুঝতে হলে জড়তা বুঝতে হবে।



জড়তা কি?

একটি স্থির বস্তু চিরকাল স্থির থাকতে চাওয়ার যে প্রবণতা তাকেই জড়তা বলে। আবার গতিশীল বস্তু কোন বাধা প্রাপ্ত না হলে চিরকাল সুষম বেগে চলতে থাকবে। জটতার বিষয়টি সহজ উদাহরণের মাধ্যমে বোঝানো যাক। মনে করুন আপনি একটি থেমে থাকা একটি বাসে বসে আছেন। বাসটি যখন চলতে শুরু করবে তখন আপনি কিছুটা পেছনের দিকে হেলে যাবেন। এই ঘটনাটি ঘটে স্থিতি জড়তার কারনে। বাসটি স্থির থাকার ফলে আপনার মধ্যে স্থিতি জড়তা বিদ্যমান থাকে। কিন্তু বাসটি চলতে শুরু করলে স্থিতি জড়তার কারনে আপনার শরীর আগের অবস্থানে থাকতে চায়। ফলাফল আপনি পেছনের দিকে হেলে যান। কিন্তু কয়েক সেকেডের ব্যবধানে আপনার শরীর গতি জড়তা প্রাপ্ত হয়। যার ফলে আবার যখন বাসটি থামবে তখন আপনি সামনের দিকে কিছুটা ঝুকে যাবেন। বিস্তারিত পড়তে এখানে ক্লিক করুনঃ https://www.odvutdos.com/2024/04/blog-post.html

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

+1 টি ভোট
1 উত্তর 121 বার দেখা হয়েছে
+9 টি ভোট
2 টি উত্তর 221 বার দেখা হয়েছে
+11 টি ভোট
3 টি উত্তর 887 বার দেখা হয়েছে
0 টি ভোট
1 উত্তর 162 বার দেখা হয়েছে

10,719 টি প্রশ্ন

18,361 টি উত্তর

4,729 টি মন্তব্য

239,680 জন সদস্য

45 জন অনলাইনে রয়েছে
1 জন সদস্য এবং 44 জন গেস্ট অনলাইনে
  1. Ayon Ratan Agni

    390 পয়েন্ট

  2. Vuter Baccha

    150 পয়েন্ট

  3. almoyaj_k

    130 পয়েন্ট

  4. Mehedi_Bknowledge

    110 পয়েন্ট

  5. Monojit Das

    110 পয়েন্ট

বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় উন্মুক্ত বিজ্ঞান প্রশ্নোত্তর সাইট সায়েন্স বী QnA তে আপনাকে স্বাগতম। এখানে যে কেউ প্রশ্ন, উত্তর দিতে পারে। উত্তর গ্রহণের ক্ষেত্রে অবশ্যই একাধিক সোর্স যাচাই করে নিবেন। অনেকগুলো, প্রায় ২০০+ এর উপর অনুত্তরিত প্রশ্ন থাকায় নতুন প্রশ্ন না করার এবং অনুত্তরিত প্রশ্ন গুলোর উত্তর দেওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি। প্রতিটি উত্তরের জন্য ৪০ পয়েন্ট, যে সবচেয়ে বেশি উত্তর দিবে সে ২০০ পয়েন্ট বোনাস পাবে।


Science-bee-qna

সর্বাপেক্ষা জনপ্রিয় ট্যাগসমূহ

মানুষ পানি ঘুম পদার্থ - জীববিজ্ঞান এইচএসসি-উদ্ভিদবিজ্ঞান এইচএসসি-প্রাণীবিজ্ঞান পৃথিবী চোখ রোগ রাসায়নিক শরীর রক্ত আলো মোবাইল ক্ষতি চুল কী #ask চিকিৎসা পদার্থবিজ্ঞান সূর্য প্রযুক্তি প্রাণী স্বাস্থ্য বৈজ্ঞানিক মাথা গণিত মহাকাশ পার্থক্য এইচএসসি-আইসিটি #science বিজ্ঞান #biology খাওয়া শীতকাল গরম কেন #জানতে ডিম চাঁদ বৃষ্টি কারণ কাজ বিদ্যুৎ রাত রং উপকারিতা শক্তি লাল আগুন সাপ মনোবিজ্ঞান গাছ খাবার সাদা আবিষ্কার দুধ উপায় হাত মশা মাছ মস্তিষ্ক শব্দ ঠাণ্ডা ব্যাথা ভয় বাতাস গ্রহ স্বপ্ন রসায়ন তাপমাত্রা উদ্ভিদ কালো কি বিস্তারিত রঙ পা পাখি গ্যাস মন সমস্যা মেয়ে বৈশিষ্ট্য হলুদ বাচ্চা সময় ব্যথা মৃত্যু চার্জ অক্সিজেন ভাইরাস আকাশ গতি দাঁত আম বিড়াল কান্না নাক
...