অনেক মুভির ব্যাকগ্রাউন্ডে গ্রীন ( সবুজ ) রং এর পর্দা ব্যবহার করা হয় কেন ? - ScienceBee প্রশ্নোত্তর

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির প্রশ্নোত্তর দুনিয়ায় আপনাকে স্বাগতম! প্রশ্ন-উত্তর দিয়ে জিতে নিন পুরস্কার, বিস্তারিত এখানে দেখুন।

+9 টি ভোট
2,097 বার দেখা হয়েছে
"তত্ত্ব ও গবেষণা" বিভাগে করেছেন (690 পয়েন্ট)

3 উত্তর

+3 টি ভোট
করেছেন (690 পয়েন্ট)
Jaedul Tawsun-সিনেমার ভিজুয়াল এফেক্টস এর জন্য গ্রীন স্ক্রীণ হচ্ছে সবচেয়ে বহুল ব্যাবহৃত ক্রোমা কিইং টেকনিক।

প্রথমে বলে নিচ্ছি, অন্য রঙ ব্যাবহার করা হয়। সেটি হচ্ছে ব্লু স্ক্রীণ। কখনো কখনো সিনেমার দৃশ্য ধারণ করতে ব্লু স্ক্রীণ ব্যাবহার করা হয়। কিন্তু এটির ব্যাবহার খুবই কম হয়।

গ্রীন স্ক্রীণ সবচাইতে বেশী ব্যাবহৃত হওয়ার কারণ হচ্ছে ক্যামেরা সেন্সরে থাকা কালার ফিল্টার। ক্যামেরার সেন্সরে অসংখ্য ছোট ছোট ফটো রিসেপ্টর থাকে যা শুধুমাত্র ব্রাইটনেস ভ্যালু ডিটেক্ট করার মাধ্যমে ছবি ধারণ করে। কালার সনাক্ত করার জন্য এই রিসেপ্টরগুলোর ওপরে RGB বা রেড, গ্রীন এবং ব্লু এই তিন রঙ সনাক্ত করার জন্য ফিল্টার এর লেয়ার থাকে। এই মৌলিক তিন রঙ এর ভ্যালু ডিটেক্ট করে সেই ভ্যালুগুলোর সমন্বয়ে কালার প্রডিউস করে ক্যামেরার সেন্সর।

আর এই ফিল্টার গুলোর মাঝে গ্রীণ ফিল্টার থাকে ৫০ শতাংশ, ব্লু ফিল্টার থাকে ২৫ শতাংশ, রেড ফিল্টার থাকে ২৫ শতাংশ। বুঝতেই পারছেন যে গ্রীণ ফিল্টার অন্য রঙ এর চাইতে দ্বিগুণ হারে উপস্থিত থাকে। তাই ক্যামেরা গ্রীণ কালার খুব ভালোভাবে শনাক্ত করতে পারে। ক্যামেরার সেন্সরের এই গঠনের পেছনে আমাদের চোখের সেন্সর প্রভাব আছে। আমাদের চোখেও সবুজ রঙ শনাক্ত করার সেন্সর দ্বিগুণ হারে বিদ্যমান। তাই ক্যামেরার সেন্সর এভাবে তৈরী।

এডিটিং সফটওয়ারগুলোতে গ্রীন স্ক্রীণ রিমুভ করা সহজ। এর জন্য বিল্ট ইন টুলস দেয়া থাকে। সহজেই ব্যাকগ্রাউন্ডের গ্রীন রিমুভ করে সেখানে প্রয়োজনীয় ব্যাকগ্রাউন্ড বসিয়ে নেয়া যায়। তাছাড়া অন্য কোন কালার যদি ব্যাবহার হতো, যেমন অরেঞ্জ, রেড, পিংক তাহলে হিতে বিপরীত হতো। কারণ, আমাদের স্কিন কালার সব সময় অরেঞ্জ, রেড অথবা পিংক এর কোনো একটা শেডে পড়ে। তখন সেই কালার টা রিমুভ করতে গেলে স্কিন এর কিছু অংশ রিমুভ হয়ে যাবে। তাই সেসব কালার ব্যাবহার করা সম্ভব নয়।

ব্লু স্ক্রীণ ব্যাবহার করা বেশী ব্যায়বহুল কারণ ব্লু স্ক্রীন এর ক্ষেত্রে বেশী লাইটিং করা দরকার হয়। গ্রীন অপেক্ষাকৃত ব্রাইট বলে লাইটিং কস্ট কম হয়। কিছু ক্ষেত্রে গ্রীণ স্ক্রীণে লাইট বাউন্স করে সাবজেক্ট এর কালারে প্রভাব ফেলে সেক্ষত্রে খবু প্রয়োজন হলে ব্লু স্ক্রীণ ব্যাবহার হয়।
+1 টি ভোট
করেছেন (690 পয়েন্ট)
Annoy Debnath-মূলত ব্যাকগ্রাউন্ড রিমুভ করার জন্য মুভিতে গ্রিন স্ক্রিন অথবা ব্লু স্ক্রিন বেশি ব্যবহার করা হয়৷ মূলত মোবাইল বা কম্পিউটারের বিভিন্ন ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যারের ক্রোমা কী অপশন ব্যবহার করে এই ব্যাকগ্রাউন্ড রিমুভ করে আপনি ট্রান্সপারেন্ট ব্যাকগ্রাউন্ড পাবেন। ফলে সেখানে আপনার পছন্দ অনুযায়ী যেকোনো ব্যাকগ্রাউন্ড দিতে পারবেন। এতে স্টুডিওর ভিতরেই শুটিং শেষ করা যায়। বাইরে যাওয়া লাগে না। আবার স্পেশাল ইফেক্ট এড করতেও সুবিধা হয়।
0 টি ভোট
করেছেন (2,030 পয়েন্ট)
সিনেমার ভিজুয়াল এফেক্টস এর জন্য গ্রীন স্ক্রীণ হচ্ছে সবচেয়ে বহুল ব্যাবহৃত ক্রোমা কিইং টেকনিক।

প্রথমে বলে নিচ্ছি, অন্য রঙ ব্যাবহার করা হয়। সেটি হচ্ছে ব্লু স্ক্রীণ। কখনো কখনো সিনেমার দৃশ্য ধারণ করতে ব্লু স্ক্রীণ ব্যাবহার করা হয়। কিন্তু এটির ব্যাবহার খুবই কম হয়।

গ্রীন স্ক্রীণ সবচাইতে বেশী ব্যাবহৃত হওয়ার কারণ হচ্ছে ক্যামেরা সেন্সরে থাকা কালার ফিল্টার। ক্যামেরার সেন্সরে অসংখ্য ছোট ছোট ফটো রিসেপ্টর থাকে যা শুধুমাত্র ব্রাইটনেস ভ্যালু ডিটেক্ট করার মাধ্যমে ছবি ধারণ করে। কালার সনাক্ত করার জন্য এই রিসেপ্টরগুলোর ওপরে RGB বা রেড, গ্রীন এবং ব্লু এই তিন রঙ সনাক্ত করার জন্য ফিল্টার এর লেয়ার থাকে। এই মৌলিক তিন রঙ এর ভ্যালু ডিটেক্ট করে সেই ভ্যালুগুলোর সমন্বয়ে কালার প্রডিউস করে ক্যামেরার সেন্সর।

আর এই ফিল্টার গুলোর মাঝে গ্রীণ ফিল্টার থাকে ৫০ শতাংশ, ব্লু ফিল্টার থাকে ২৫ শতাংশ, রেড ফিল্টার থাকে ২৫ শতাংশ। বুঝতেই পারছেন যে গ্রীণ ফিল্টার অন্য রঙ এর চাইতে দ্বিগুণ হারে উপস্থিত থাকে। তাই ক্যামেরা গ্রীণ কালার খুব ভালোভাবে শনাক্ত করতে পারে। ক্যামেরার সেন্সরের এই গঠনের পেছনে আমাদের চোখের সেন্সর প্রভাব আছে। আমাদের চোখেও সবুজ রঙ শনাক্ত করার সেন্সর দ্বিগুণ হারে বিদ্যমান। তাই ক্যামেরার সেন্সর এভাবে তৈরী।

এডিটিং সফটওয়ারগুলোতে গ্রীন স্ক্রীণ রিমুভ করা সহজ। এর জন্য বিল্ট ইন টুলস দেয়া থাকে। সহজেই ব্যাকগ্রাউন্ডের গ্রীন রিমুভ করে সেখানে প্রয়োজনীয় ব্যাকগ্রাউন্ড বসিয়ে নেয়া যায়। তাছাড়া অন্য কোন কালার যদি ব্যাবহার হতো, যেমন অরেঞ্জ, রেড, পিংক তাহলে হিতে বিপরীত হতো। কারণ, আমাদের স্কিন কালার সব সময় অরেঞ্জ, রেড অথবা পিংক এর কোনো একটা শেডে পড়ে। তখন সেই কালার টা রিমুভ করতে গেলে স্কিন এর কিছু অংশ রিমুভ হয়ে যাবে। তাই সেসব কালার ব্যাবহার করা সম্ভব নয়।

ব্লু স্ক্রীণ ব্যাবহার করা বেশী ব্যায়বহুল কারণ ব্লু স্ক্রীন এর ক্ষেত্রে বেশী লাইটিং করা দরকার হয়। গ্রীন অপেক্ষাকৃত ব্রাইট বলে লাইটিং কস্ট কম হয়। কিছু ক্ষেত্রে গ্রীণ স্ক্রীণে লাইট বাউন্স করে সাবজেক্ট এর কালারে প্রভাব ফেলে সেক্ষত্রে খবু প্রয়োজন হলে ব্লু স্ক্রীণ ব্যাবহার হয়।

আশা করি আপনার উত্তর টি যথাযথভাবে উপস্থাপন করতে পেরেছি।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

+3 টি ভোট
2 টি উত্তর 777 বার দেখা হয়েছে
+8 টি ভোট
1 উত্তর 529 বার দেখা হয়েছে
03 জানুয়ারি 2021 "তত্ত্ব ও গবেষণা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন noshin mahee (110,320 পয়েন্ট)
+2 টি ভোট
1 উত্তর 229 বার দেখা হয়েছে

10,720 টি প্রশ্ন

18,363 টি উত্তর

4,729 টি মন্তব্য

240,166 জন সদস্য

64 জন অনলাইনে রয়েছে
0 জন সদস্য এবং 64 জন গেস্ট অনলাইনে
  1. Ayon Ratan Agni

    390 পয়েন্ট

  2. Al Moyaj Khondokar

    210 পয়েন্ট

  3. Vuter Baccha

    150 পয়েন্ট

  4. Mehedi_Bknowledge

    110 পয়েন্ট

  5. Monojit Das

    110 পয়েন্ট

বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় উন্মুক্ত বিজ্ঞান প্রশ্নোত্তর সাইট সায়েন্স বী QnA তে আপনাকে স্বাগতম। এখানে যে কেউ প্রশ্ন, উত্তর দিতে পারে। উত্তর গ্রহণের ক্ষেত্রে অবশ্যই একাধিক সোর্স যাচাই করে নিবেন। অনেকগুলো, প্রায় ২০০+ এর উপর অনুত্তরিত প্রশ্ন থাকায় নতুন প্রশ্ন না করার এবং অনুত্তরিত প্রশ্ন গুলোর উত্তর দেওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি। প্রতিটি উত্তরের জন্য ৪০ পয়েন্ট, যে সবচেয়ে বেশি উত্তর দিবে সে ২০০ পয়েন্ট বোনাস পাবে।


Science-bee-qna

সর্বাপেক্ষা জনপ্রিয় ট্যাগসমূহ

মানুষ পানি ঘুম পদার্থ - জীববিজ্ঞান এইচএসসি-উদ্ভিদবিজ্ঞান এইচএসসি-প্রাণীবিজ্ঞান পৃথিবী চোখ রোগ রাসায়নিক শরীর রক্ত আলো মোবাইল ক্ষতি চুল কী #ask চিকিৎসা পদার্থবিজ্ঞান সূর্য প্রযুক্তি প্রাণী স্বাস্থ্য বৈজ্ঞানিক মাথা গণিত মহাকাশ পার্থক্য এইচএসসি-আইসিটি #science বিজ্ঞান #biology খাওয়া শীতকাল গরম কেন #জানতে ডিম চাঁদ বৃষ্টি কারণ কাজ বিদ্যুৎ রাত রং উপকারিতা শক্তি লাল আগুন সাপ মনোবিজ্ঞান গাছ খাবার সাদা আবিষ্কার দুধ উপায় হাত মশা মাছ মস্তিষ্ক শব্দ ঠাণ্ডা ব্যাথা ভয় বাতাস গ্রহ স্বপ্ন রসায়ন তাপমাত্রা উদ্ভিদ কালো কি বিস্তারিত রঙ পা পাখি গ্যাস মন সমস্যা মেয়ে বৈশিষ্ট্য হলুদ বাচ্চা সময় ব্যথা মৃত্যু চার্জ অক্সিজেন ভাইরাস আকাশ গতি দাঁত আম বিড়াল কান্না নাক
...