মাটি, সাবান, কাগজ, আঠা খাওয়া কেমন রোগ? - ScienceBee প্রশ্নোত্তর

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির প্রশ্নোত্তর দুনিয়ায় আপনাকে স্বাগতম! প্রশ্ন-উত্তর দিয়ে জিতে নিন পুরস্কার, বিস্তারিত এখানে দেখুন।

0 টি ভোট
546 বার দেখা হয়েছে
"স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা" বিভাগে করেছেন (7,950 পয়েন্ট)

2 উত্তর

0 টি ভোট
করেছেন (7,950 পয়েন্ট)

Pica Disorder বা অখাদ্য খাওয়া যখন অভ্যাস। পাইকা খাদ্যগ্রহণ সংক্রান্ত একটি জটিল রোগ। পাইকা ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ব্যক্তিরা পুষ্টিগুনহীন খাবার গ্রহণে আসক্ত থাকেন। যেমন: মাটি, চক, সাবান, টুথপেস্ট, ডিটারজেন্ট, মল, রক্ত, বমি, কাঁচ, দেয়ালের প্লাস্টার, কাগজ, আঠা, চুল, বরফ ইত্যাদি। 

মানসিক রোগ, যেমন: অবসেসিভ কম্পালসিভ ডিজঅর্ডার, অটিজম, স্কিজোফ্রেনিয়া আক্রান্তদের মধ্যে পাইকার প্রবণতা বেশি দেখা যায়। তাছাড়া, এক থেকে ছয় বছর বয়সী ১০%-৩০% শিশুর মধ্যে পাইকা রোগ দেখা যায়। প্রাপ্তবয়স্ক দের মধ্যে গর্ভবতী নারীদের মধ্যে এমন অখাদ্য খাওয়ার প্রবণতা দেখা যায়। অখাদ্য গ্রহনের ধরনের উপর নির্ভর করে পাইকা কে ভিন্ন ভিন্ন ভাগে ভাগ করা হয়। যেমনঃ-

▪ কোপ্রোফিয়া: মল খাওয়া
▪ এমেটোফেজিয়া: বমি খাওয়া
▪ জিওফেজিয়া: কাদা, মাটি, চক খাওয়া
▪ কনিওফেজিয়া: ধুলাবালি খাওয়া
▪ প্যাগোফেজিয়া: বরফ খাওয়া
▪ ট্রাইকোফেজিয়া: চুল, পশম খাওয়া
▪ হায়ালোফেজিয়া: কাঁচের জিনিস খাওয়া
▪ জাইলোফেজিয়া: কাঠ খাওয়া
▪ ইউরোফেজিয়া: প্রস্রাব খাওয়া
▪ হেমাটোফেজিয়া: রক্ত খাওয়া
▪ সাইলোফেজিয়া: কাঠ, কাগজ খাওয়া
▪ লিথোফেজিয়া: পাথর খাওয়া
▪ অ্যাকুফেজিয়া: তীক্ষ্ণ বস্তু খাওয়া
▪ কটোপাইরিওফেজিয়া: দিয়াশলাইয়ের পোড়া অংশ খাওয়া

কিছু শারীরিক ও মানসিক সমস্যার কারণে পাইকা হতে পারে। যেমন: অনেকেই পুষ্টিহীন জিনিসে স্বাদ পান বা পুষ্টিহীন বস্তুর ঘ্রাণ তাদের ভালো লাগে তাই খেয়ে ফেলেন। আবার শরীরে আয়রন বা জিংক এর অভাবেও এই রোগ হয়। যারা মাটি, কাদা, বরফ খায় তাদের সাধারণত হিমোগ্লোবিন এর অভাব থাকে। তাছাড়া দারিদ্র্যতা, ভয়, মানসিক চাপ, অবহেলার শিকার হলে অনেক সময় শিশুরা এই রোগে আক্রান্ত হয়। কি কারণে এই রোগ হয়েছে সেটি নির্ণয় করে সাধারণত চিকিৎসা দেওয়া হয়। তবে এই রোগের চিকিৎসার জন্য কগনিটিভ বিহেভিয়ার থেরাপি, সার্পোটিভ কাউন্সেলিং, বিহেবিভার মডিফিকেশন ট্রেনিং সবচেয়ে কার্যকর।

© Nishat Tasnim (Science Bee)

0 টি ভোট
করেছেন (5,210 পয়েন্ট)
জিওফ্যাগি: মাটি খাওয়ার অদ্ভুত এক আসক্তি

জিওফ্যাগি বা মাটি খাওয়ার অভ্যাস খুব একটা নতুন কিছু নয়। প্রতিটি দেশেই শিশু, গর্ভবতী নারী কিংবা যেকোনো বয়সের যেকোনো মানুষের মধ্যে এই অভ্যাস দেখতে পাওয়া যায়। কারো কাছে এই অভ্যাস চলে আসে অনুকরণের মাধ্যমে। কারো ক্ষেত্রে ব্যাপারটি হয় স্বল্পস্থায়ী, কারো ক্ষেত্রে দীর্ঘস্থায়ী। কিন্তু প্রশ্ন হলো- মানুষ কেন খাবার উপযোগী আর সবকিছু বাদ দিয়ে মাটি খেতে আগ্রহ বোধ করে? আসলেই কি মাটি ক্ষতিকর আমাদের শরীরের পক্ষে, নাকি কিছু ইতিবাচক দিকও আছে এই উদ্ভট খাদ্যাভ্যাসটির? ক্যামেরুনবাসী শীলা নামক এক তরুণী জানায়, তার মাটি খাওয়ার অভ্যাস গড়ে ওঠে নিজের খালার কাছ থেকে খুব ছোট্ট বয়সে। ‘কাওলিন’ নামক একরকমের মাটি, যা কিনা প্যাকেটজাত অবস্থায় বাজারে কিনতে পাওয়া যায়, সেটিই গ্রহণ করতেন শীলার খালা। আরো অনেকের মধ্যেই কাওলিন গ্রহণের অভ্যাস আছে বলে জানান শীলা। কাওলিন! কী এটি? চলুন, জেনে আসি কাওলিন সংক্রান্ত কিছু তথ্য

বাজারে, বিশেষ করে ক্যামেরুনে কাওলিন খুব সহজপ্রাপ্য একটি উপাদান। বাংলাদেশেও যে এটি পাওয়া যায় না, তা নয়। এটি একধরনের শিল্পকাজে ব্যবহৃত খনিজ মাটি। জিওফ্যাগির ভুক্তভোগীদের মধ্যে বেশ জনপ্রিয় এটি। কোনোরকম বাজে প্রভাব ছাড়াই এটি গ্রহণ করা সম্ভব। ফলে নিজের নিরাপত্তাটাও বেশ নিশ্চিত করতে পারেন এক্ষেত্রে জিওফ্যাগির ভুক্তভোগীরা। তবে কেবল যে কাওলিন তাদেরকে সাহায্য করে এমনটা নয়। জিওফ্যাগিতে আক্রান্ত মানুষ ছড়িয়ে আছে পৃথিবী জুড়ে এবং তাদের নিরাপত্তা ও সন্তুষ্টি পুরোপুরি নিশ্চিত করতে মাটিকে ভিন্ন উপায়ে ব্যবহারও করছে বিভিন্ন দোকানগুলো। এবং এক্ষেত্রে প্রশাসন অবশ্যই কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না। কারণ, পণ্যটি তো মাটি। কোনো মাদক নয়!

যুক্তরাষ্ট্রের করনেল বিশ্ববিদ্যালয়ের জিওফ্যাগি বিশেষজ্ঞ সেরা ইয়াং বলেন, পৃথিবীতে জিওফ্যাগির ইতিহাস অনেক পুরনো। প্রায় দুই যুগ ধরে পৃথিবীজুড়ে এই ব্যাপারটি নিয়ে গবেষণা চালান ইয়াং। আর্জেন্টিনা, নামিবিয়া এবং ইরানের মতো দেশগুলোতে মাটিকে খাবার হিসেবে গ্রহণ করার এই অভ্যাসটি প্রচুর পরিমাণে দেখতে পাওয়া যায়। দুটো বিশেষ দল- শিশু এবং গর্ভবতী নারীদের মধ্যে এই প্রবণতা বেশি দেখা যায়। অন্য যে দেশগুলোতে জিওফ্যাগির পরিমাণ কম দেখা গিয়েছে, সেগুলোতে অনেকেই ব্যাপারটি ঠিক প্রকাশ করার মতো বলে মনে করেন না বিধায় এমন হয়েছে বলে মনে করেন ইয়াং। গ্রামের প্রত্যন্ত এলাকায় নিশ্চয় মাটি কিনতে পাওয়া যায় না। সেখানেও এই প্রবণতা দেখেন ইয়াং। তানজানিয়ার এক ছোট্ট গ্রামে গ্রাম্য একজন নারী ইয়াংকে জানান যে, গর্ভকালে দিনে দুবার তিনি দেয়াল থেকে মাটি উঠিয়ে খেতেন।
কথাগুলো অনেক বেশি অবাক করা এবং শরীর গুলিয়ে ওঠার মতো হলেও একটি ব্যাপার তো মানতেই হবে যে, মানুষ নিজে ঠিক করে তার খাবার। তাই আমরা সভ্য সমাজে সবাই যেটিকে খাবার মনে করি আর যা আমরা খেতে পারি না সেগুলোই সবকিছু নয়। এর বাইরেও এমন অদ্ভুত কিছু খাওয়ার আসক্তি থাকতে পারে। মানুষ একত্রে এমন ভিন্ন খাদ্যাভ্যাসের নাম দিয়েছে ‘পিকা’। ক্যামেরুনে ব্যাপারটি অদ্ভুত কিছু নয়। কেনিয়াতে দোকানে নানা দোকানে প্যাকেটজাত মাটি কিনতে পাওয়া যায়। সেগুলোর অনেক ধরনের স্বাদও আছে। আমেরিকার জর্জিয়া নিজের হোয়াইট ডার্ট বা সাদা মাটির মানের জন্য বিখ্যাত। এগুলোর কোনোটাতেই লেখা থাকে না যে মানুষের খাবারের জন্য তৈরি হয়েছে প্যাকেটগুলো। তবে সবাই জানে, এমন হরেক মাটির উদ্দেশ্য কী!

আফ্রিকান যেকোনো মুদি দোকানে গিয়ে ‘প্রেগনেন্সি ক্লে’ চাইলে অবশ্যই খাওয়ার উপযোগী মাটি পাওয়া যাবে বলে জানান ইয়াং। কেবল তথ্যই জানেননি ইয়াং, সেইসাথে চেখে দেখেছেন প্যাকেট করা মাটিগুলো। প্রথমে খানিকটা শক্ত বলে মনে হলেও নিমেষে নরম হয়ে জিহ্বার সাথে আটকে যায় উপাদানটি। অনেকটা নরম মাংসের তালের মতো বলে নিজের জানান ইয়াং। বাস্তবেও আমরা মাটি বলতে যেটাকে বুঝে থাকি সেটি হলেও আরো একটু বেশি প্রক্রিয়াধীন এবং মানসম্পন্ন এই প্যাকেটজাত মাটি। শরীরের লৌহের অভাব পূরণ করা ছাড়াও গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা দূর করে দেয় এই মাটি। অন্যদিকে খাবারের প্রস্তুতিতে, খাবারের বিষাক্ততা কমাতে এবং সেটাকে উপাদেয় করে তুলতে মাটির ব্যবহার অনেক আগে থেকেই চলে আসছে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। একর্ন নামক বাদামজাতীয় উপাদান দিয়ে তৈরি রুটি ক্যালিফোর্নিয়াতে বেশ ভালো চললেও এমনিতে সেটি খেতে উপাদেয় নয়। প্রথমে তাই মাটির সাথে বাদাম গুঁড়ো করে তারপর খাবারের উপযোগী হিসেবে তৈরি করা হয় একর্নকে।

অনেকে আবার ভাবেন, মাটি খাওয়ার সাথে রক্তস্বল্পতার ব্যাপারটি ভালোভাবে জড়িত। শরীর আয়রন না থাকলে সেটি রক্তাল্পতা তৈরি করে। আর সে কারণেই মানুষ, বিশেষ করে নারীরা, যাদের শরীরে রক্তস্বল্পতার মতো ব্যাপার আছে, তারা মাটি খাওয়ার প্রতি আকর্ষণ বোধ করেন। কিছু বিশেষজ্ঞের মতে, খাবারের অভাব দেখা দিলে এবং যথাযথ পুষ্টি না পেলে মানুষ জিওফ্যাগির প্রতি আকৃষ্ট হয়। তবে পূর্বে দেখানো কারণের তুলনায় এই কারণটিকে বেশ নড়বড়ে এবং দুর্বল মনে হওয়ায় অনেকেই এটিকে গোনার মধ্যেই ধরেন না। তবে যুক্তরাষ্ট্রের একটি সুপরিচিত বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক জুলিয়া হোমেস বলেন, শারীরিক কোনো চাহিদার চাইতে মানসিক ব্যাপারটাই অনেক বেশি সাহায্য করে মানুষকে জিওফ্যাগিতে আক্রান্ত হতে। তার মতে, মানুষ যদি তার চারপাশে দেখতে পায় যে, সবাই আইসক্রিম বা চকোলেটের প্রতি আসক্তি বোধ করছে কিংবা চিপস বা পিজ্জা খেতে চাইছে, তাহলে মানসিকভাবে সে-ও এমন কিছুই খেতে চাইবে কিংবা খাওয়ার আগ্রহ বোধ করবে। কিন্তু ক্যামেরুনে, যেখানে অনেকেই মাটি খেতে, অর্থাৎ জিওফ্যাগি বিষয়টির সাথে অভ্যস্ত, সেখানে অন্যরাও তেমন কিছুর প্রতি আকর্ষণ বোধ করবে সেটাই স্বাভাবিক। সহজলভ্যতাও এক্ষেত্রে একটি বড় ব্যাপার। যেটি আপনার হাতের কাছে নেই, সেটি সম্পর্কে আপনি নিশ্চয় খুব বেশি ভাববেন না এবং খাওয়ার আগ্রহ জন্মানোর জন্য যে চিন্তাটুকু করার দরকার পড়ে সেটিও করবেন না।
গবাদিপশু, হাতি, তোতা, বাঁদুরের মতন প্রাণীরাও জিওফ্যাগিতে অভ্যস্ত। নিজেদের শারীরিক ও মানসিক চাহিদা থেকেই তারা এই অভ্যাসটি আয়ত্ত করেছে। আর সেটা যে উপকারী, তা-ও সবাই মেনেও নিয়েছে। তবে এই সবাই এখনো এটি মেনে নিতে পারেননি যে, একই ব্যাপারটি মানুষের ক্ষেত্রেও কখনো কখনো স্বাভাবিক ব্যাপার হতে পারে। ২০০০ সালে ইউএস এজেন্সি ফর টক্সিক সাবস্ট্যান্সেস এন্ড ডিজিজ রেজিস্ট্রি এক গবেষণার ফলাফল হিসেবে জানায় যে, সেখানে মানুষ গড়ে প্রতিদিন ৫০০ মিলিগ্রাম মাটি গ্রহণ করছে। বিশেষজ্ঞদের অনেকেই এ ব্যাপারে কিছু বলতে চান না, কারণ তাদের বক্তব্যানুসারে, ব্যাপারটি পুরোপুরি সাংস্কৃতিক। ফলে এ নিয়ে খুব বেশি কিছু বলার নেই। তবে বাস্তবে অনেক সময় মাটির সাথে বিষাক্ত উপাদান মিশে থাকার ভয় থেকে যায়। যেটা হয়তো একটু হলেও দূর করা সম্ভব। কিন্তু যে শিশু বা বয়স্ক মানুষকে আপনি জিওফ্যাগি স্বাভাবিক না ব্যাপারটি বোঝালেন, তারা কিন্তু নিজেদেরকে অস্বাভাবিক আর সবার থেকে আলাদা কিছুই ভেবে নেবে। প্রভাবটা পড়বে মানসিক স্বাস্থ্যে। এর অর্থ এই নয় যে, মাটি খাওয়ার ব্যাপারটি ভালো না খারাপ সেটা নিয়ে কোনো উপসংহার টেনে ফেলা গেল। তবে যা করা সহজ, যে উপায়ে করা সহজ এবং কম ক্ষতিকর সেটি অবলম্বন করাই উচিত। তা জিওফ্যাগি নামক অভ্যাসটি চালিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রেই হোক কিংবা অভ্যাসটি থেকে কাউকে সরিয়ে আনার ক্ষেত্রে হোক।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

0 টি ভোট
3 টি উত্তর 342 বার দেখা হয়েছে
17 নভেম্বর 2021 "মনোবিজ্ঞান" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Fake Id (14,110 পয়েন্ট)
0 টি ভোট
2 টি উত্তর 143 বার দেখা হয়েছে
17 নভেম্বর 2021 "মনোবিজ্ঞান" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Fake Id (14,110 পয়েন্ট)
0 টি ভোট
4 টি উত্তর 628 বার দেখা হয়েছে
17 নভেম্বর 2021 "স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Hojayfa Ahmed (135,470 পয়েন্ট)
0 টি ভোট
1 উত্তর 220 বার দেখা হয়েছে
22 জুন 2022 "স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Nishat Tasnim (7,950 পয়েন্ট)
0 টি ভোট
1 উত্তর 905 বার দেখা হয়েছে

10,754 টি প্রশ্ন

18,417 টি উত্তর

4,734 টি মন্তব্য

245,729 জন সদস্য

39 জন অনলাইনে রয়েছে
1 জন সদস্য এবং 38 জন গেস্ট অনলাইনে
  1. shuvosheikh

    350 পয়েন্ট

  2. talal

    150 পয়েন্ট

  3. nahidemon

    110 পয়েন্ট

  4. Soyfa chakma

    110 পয়েন্ট

  5. EbonyCovey9

    100 পয়েন্ট

বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় উন্মুক্ত বিজ্ঞান প্রশ্নোত্তর সাইট সায়েন্স বী QnA তে আপনাকে স্বাগতম। এখানে যে কেউ প্রশ্ন, উত্তর দিতে পারে। উত্তর গ্রহণের ক্ষেত্রে অবশ্যই একাধিক সোর্স যাচাই করে নিবেন। অনেকগুলো, প্রায় ২০০+ এর উপর অনুত্তরিত প্রশ্ন থাকায় নতুন প্রশ্ন না করার এবং অনুত্তরিত প্রশ্ন গুলোর উত্তর দেওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি। প্রতিটি উত্তরের জন্য ৪০ পয়েন্ট, যে সবচেয়ে বেশি উত্তর দিবে সে ২০০ পয়েন্ট বোনাস পাবে।


Science-bee-qna

সর্বাপেক্ষা জনপ্রিয় ট্যাগসমূহ

মানুষ পানি ঘুম পদার্থ - জীববিজ্ঞান এইচএসসি-উদ্ভিদবিজ্ঞান এইচএসসি-প্রাণীবিজ্ঞান পৃথিবী চোখ রোগ রাসায়নিক শরীর রক্ত আলো #ask মোবাইল ক্ষতি চুল কী চিকিৎসা পদার্থবিজ্ঞান সূর্য #science প্রযুক্তি স্বাস্থ্য প্রাণী গণিত বৈজ্ঞানিক মাথা মহাকাশ পার্থক্য এইচএসসি-আইসিটি #biology বিজ্ঞান খাওয়া গরম শীতকাল #জানতে কেন ডিম চাঁদ বৃষ্টি কারণ কাজ বিদ্যুৎ রাত রং উপকারিতা শক্তি লাল আগুন সাপ মনোবিজ্ঞান গাছ খাবার সাদা আবিষ্কার দুধ উপায় হাত মশা মাছ ঠাণ্ডা মস্তিষ্ক শব্দ ব্যাথা ভয় বাতাস স্বপ্ন তাপমাত্রা গ্রহ রসায়ন উদ্ভিদ কালো পা কি বিস্তারিত রঙ মন পাখি গ্যাস সমস্যা মেয়ে বৈশিষ্ট্য হলুদ বাচ্চা সময় ব্যথা মৃত্যু চার্জ অক্সিজেন ভাইরাস আকাশ গতি দাঁত আম হরমোন বাংলাদেশ বিড়াল
...