স্যাটেলাইট কিভাবে কাজ করে? - ScienceBee প্রশ্নোত্তর

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির প্রশ্নোত্তর দুনিয়ায় আপনাকে স্বাগতম! প্রশ্ন-উত্তর দিয়ে জিতে নিন পুরস্কার, বিস্তারিত এখানে দেখুন।

+2 টি ভোট
876 বার দেখা হয়েছে
"পদার্থবিজ্ঞান" বিভাগে করেছেন (15,280 পয়েন্ট)

4 উত্তর

0 টি ভোট
করেছেন (15,280 পয়েন্ট)

 

স্যাটেলাইট কীভাবে কাজ করে

বঙ্গুবন্ধু ১ স্যাটেলাইটের উৎক্ষেপণের মধ্য দিয়ে আক্ষরিক অর্থেই মহাকাশের দিকে একধাপ পা বাড়াল বাংলাদেশ। কীভাবে উৎক্ষেপণ হলো এই স্যাটেলাইট, এর কারিগরি দিকই বা কেমন, এই স্যাটেলাইট থেকে আমরা কী সুবিধা পাব?

প্রাচীন যুগেই মানুষ জেনে গিয়েছিল চাঁদ পৃথিবীর উপগ্রহ। কিন্তু পৃথিবীকেন্দ্রিক মহাবিশ্বের ধারণায় গ্রহ-উপগ্রহের ফারাক করা মুশকিল ছিল। মধ্যযুগে পোলিশ জ্যোতির্বিদ কোপার্নিকাস বললেন, পৃথিবীসহ সব গ্রহই সূর্যের চারপাশে ঘোরে, পৃথিবীর চারপাশে নয়। তখনই অনেকটা নিশ্চিত হওয়া গেল চাঁদই পৃথিবীর একমাত্র উপগ্রহ। এরপর ইতালিয়ান বিজ্ঞানী গ্যালিলিও গ্যালিলি মহাকাশ চিনিয়েছেন আরও স্পষ্টভাবে। তিনি সুদূর বৃহস্পতিকে দেখেছেন নিজের তৈরি টেলিস্কোপে চোখ রেখে। আবিষ্কার করেছেন গ্রহরাজের চারটি উপগ্রহ। তখনই মূলত উপগ্রহ সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা তৈরি হয় বিজ্ঞানীদের কাছে। একটা গ্রহকে কেন্দ্র করে এর চারপাশে যেসব বস্তু ঘোরে, সেগুলোই হলো ওই গ্রহের উপগ্রহ। চাঁদ তেমনি পৃথিবীর একমাত্র প্রাকৃতিক উপগ্রহ। প্রতিটি উপগ্রহের একটা বহির্মুখী গতিশক্তি থাকে। যেমন চাঁদের একটা বহির্মুখী গতিশক্তি আছে। এই গতিশক্তির কারণে সে পৃথিবী থেকে দূর মহাকাশে ছুটে যেতে চায়। কিন্তু পৃথিবীর মহাকর্ষীয় আকর্ষণ বল চাঁদকে সেটা করতে দেয় না। বরং এই মহাকর্ষ বল চাঁদকে পৃথিবীর বুকে টেনে আনতে চায়। চাঁদের গতিশক্তিজনিত বহির্মুখী বল আর পৃথিবীর মহাকর্ষ বল সমান। তাই এ দুই বল কেউ কাউকে হারাতে পারে না। তাই চাঁদও পৃথিবীর বুকে নেমে আসে না, অন্যদিকে চাঁদের গতিশক্তিজনিত বলও একে দূর মহাকাশে ঠেলে দিতে পারে না। এ দুই বলের টানাটানিতে চাঁদ শেষ পর্যন্ত কোনো দিকেই না গিয়ে পৃথিবীর চারপাশে ঘোরে। এটাই হলো প্রতিটি গ্রহ-উপগ্রহের কক্ষপথে ঘোরার রহস্য।

চাঁদ তো প্রাকৃতিকভাবে তৈরি হয়েছে। এখন যদি কৃত্রিম কোনো বস্তুকে আমরা পৃথিবীর কক্ষপথে স্থাপন করি। প্রথমে সেগুলোকে একটা গতিশক্তি দিতে হবে। রকেটের মাধ্যমে কৃত্রিম উপগ্রহে সেই গতিশক্তি দেওয়া সম্ভব। তারপর সেই বস্তুটাকে এমন একটা গতিশক্তি দিতে হবে, যেন তার গতিশক্তিজনিত বল পৃথিবীর মহাকর্ষ বলের সমান হয়। এ জন্য প্রয়োজন একটি কক্ষপথ। আর সেই কক্ষপথেই ওই বস্তুটা স্থাপন করলে সেটা উপগ্রহের মতো আচরণ করবে। এ জন্যই সেটাকে কৃত্রিম উপগ্রহ বলে। মানুষ নিজেদের প্রয়োজনে কিছু ইলেকট্রনিকস যন্ত্র তৈরি করে পৃথিবীর চারদিকে ছড়িয়ে দিয়েছে। সেগুলো আসলে কৃত্রিম উপগ্রহ বা স্যাটেলাইট। কৃত্রিম উপগ্রহ যদি পৃথিবীর কাছাকাছি তিন শ থেকে হাজার কিলোমিটারের মধ্যে থাকে, তবে পৃথিবীর ওপর আছড়ে পড়বে। কিন্তু যদি একটি শক্তি দিয়ে ঘুরিয়ে দেওয়া যায়, তাহলে সর্পিল আকারে পাক খেতে খেতে পৃথিবীর দিকে আসতে থাকবে। এতে আছড়ে পড়তে সময় অনেক কম লাগবে। পৃথিবীর যত কাছাকাছি আসবে, আছড়ে পড়ার গতি তত বাড়তে থাকবে। এই আছড়ে পড়া ঠেকাতে হলে উল্টো দিকে ঠেলে দেওয়ার জন্য থ্রাস্টার যোগ করা হয়। এই যেমন ইন্টারন্যাশনাল স্পেস স্টেশন, আমাদের চারপাশে ৪০০ কিলোমিটার ওপর দিয়ে ঘুরছে, কিন্তু থ্রাস্টার দিয়ে আছড়ে পড়া ঠেকানো হয়েছে।

ইতিমধ্যে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের তৈরি একটি ন্যানো-স্যাটেলাইট মহাশূন্যের লো আর্থ অরবিটে অবস্থান করছে। সেটার নাম ব্র্যাক অন্বেষা। ২০১৭ সালের জুন মাসে এটিকে ফ্যালকন-৯ রকেটে করে ইন্টারন্যাশনাল স্পেস স্টেশনে পাঠানো হয়। সে বছরের জুলাইয়ে মহাশূন্যে সেটা সক্রিয় হয়।

এতক্ষণ যা বলা হলো, তা সবই হলো পোলার অরবিটিং, অর্থাৎ চলন্ত স্যাটেলাইট নিয়ে। এবার আসা যাক জিওস্টেশনারি স্যাটেলাইট বা ভূস্থির উপগ্রহের ব্যাপারে। ভূস্থির স্যাটেলাইট পৃথিবীর সাপেক্ষে কখনো অবস্থান পরিবর্তন করে না। পৃথিবী যেভাবে ঘুরছে, সেগুলোও পৃথিবীর সাপেক্ষে একই গতিতে ঘুরছে। তার মানে, যদি কোনো স্যাটেলাইটকে বাংলাদেশের ওপর স্থাপন করা হয়, তাহলে সেটি সব সময়ই বাংলাদেশের ওপরই অবস্থান করছে বলে মনে হবে, চাঁদের মতো অবস্থান পরিবর্তনশীল মনে হবে না।

আমাদের বঙ্গবন্ধু-১ উপগ্রহটিও এমন ভূস্থির। এটি পৃথিবী থেকে প্রায় ৩৬ হাজার কিলোমিটার উচ্চতায় স্থির থেকে পৃথিবীর সঙ্গে যোগাযোগের কাজ করবে। আমাদের প্রয়োজনে বিভিন্ন ধরনের কৃত্রিম স্যাটেলাইট তৈরি করা হয়েছে। যেমন পৃথিবী পর্যবেক্ষণ, আবহাওয়ার খবর নেওয়া, অবস্থান নির্ণয় ইত্যাদি। কিন্তু বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট তৈরি হয়েছে যোগাযোগ ও টিভি-বেতার সম্প্রচারে সহায়তার উদ্দেশ্যে। আমরা জানি, যোগাযোগ বা তথ্য আদান-প্রদান হয় বিভিন্ন মাপের বিদ্যুত্চুম্বক তরঙ্গ দিয়ে। এই তরঙ্গ প্রেরণ বা গ্রহণের জন্য অ্যানটেনার প্রয়োজন। তাই এই স্যাটেলাইট ভূপৃষ্ঠের গ্রাউন্ড স্টেশনের দিকে তাক করে স্থাপন করা হবে। এ জন্য থাকবে ডিশ আকৃতির কতগুলো অ্যানটেনা। তেমনি ভূপৃষ্ঠের গ্রাউন্ড স্টেশনের অ্যানটেনাগুলোও উপগ্রহের দিকে তাক করা থাকতে হবে।

যেহেতু তরঙ্গ বিভিন্ন মাপের হয়, আবার বিভিন্ন ধরনের তরঙ্গ বিভিন্ন ধরনের তথ্য বহন করে, তাই অ্যানটেনার সঙ্গে যুক্ত থাকতে হয় ট্রান্সসিভার যন্ত্র, তরঙ্গের বিচ্যুতি দূর করার জন্য ফিল্টার, তথ্যের নিরাপত্তার জন্য এনক্রিপ্টর-ডেক্রিপ্টর, দুর্বল সিগন্যালকে শক্তিশালী করার জন্য পাওয়ার অ্যামপ্লিফায়ার ইত্যাদি। এই সবকিছু পরিচালিত হয় জটিল সব ইলেকট্রনিকস যন্ত্রপাতি ও সফটওয়্যার দিয়ে। স্যাটেলাইটের যোগাযোগের এই যন্ত্রপাতি ও সফটওয়্যারের সমন্বয়কে বলা হয় ট্রান্সপন্ডার। আমাদের বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটে এ ধরনের উচ্চগতির ৪০টি আলাদা ট্রান্সপন্ডার রয়েছে। এর মধ্যে ২৬টি কেইউ ব্যান্ডের আর ১৪টি সি ব্যান্ডের। এই ট্রান্সপন্ডার দিয়ে বাংলাদেশসহ আমাদের আশপাশের দেশগুলোও বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটের টেলিকমিউনিকেশন সেবা পাবে। যেহেতু এটি একটি বাণিজ্যিক স্যাটেলাইট, কাজেই এর সেবা ভোগ করতে হলে আর্থিক বিনিয়োগ করতে হবে। আমাদের এই স্যাটেলাইট তৈরি করেছে ফ্রান্সের কোম্পানি থ্যালাস অ্যালানিয়া।

এ তো গেল স্যাটেলাইটের তথ্য। কিন্তু এই স্যাটেলাইট স্থাপন করতে হলে একটি রকেটের মাধ্যমে এটিকে ভূপৃষ্ঠ থেকে প্রায় ৩৬ হাজার কিলোমিটার উচ্চতায় মহাশূন্যে নিয়ে যেতে হবে। ইলেন মাস্কের স্পেসএক্স কোম্পানির তৈরি অত্যাধুনিক ফ্যালকন-৯ ব্লক-৫ রকেট দিয়ে আমাদের বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট স্পেসে উৎক্ষেপণ করা হবে। ব্লক-৫ হলো ফ্যালকন-৯-এর সর্বশেষ সংস্করণ। এর ক্ষমতা আগেরগুলোর তুলনায় অনেক বেশি, অনেক বেশি নির্ভরযোগ্য ও সাশ্রয়ী। এই রকেটের মূলত তিনটি অংশ থাকে। একদম নিচেরটাকে বলে স্টেজ-১ বা বুস্টার স্টেজ। এটা মূলত লিফটঅফ বা ভূপৃষ্ঠ থেকে উৎক্ষেপণ করানোর কাজে ব্যবহৃত হয়। মুক্তিবেগের মাধ্যমে মূল অভিকর্ষজ ত্বরণ কাটিয়ে বঙ্গবন্ধু-১-কে লো আর্থ অরবিটে উঠিয়ে নিয়ে যাবে এটা। এরপর দ্বিতীয় স্টেজের ধাক্কায় জিওসিনক্রোনাস ট্রান্সফার অরবিটের পথ পড়ি দেবে। জিওসিনক্রোনাস ট্রান্সফার অরবিট অতিক্রমের সময়ই খুলে যাবে ড্রাগন ক্যাপসুল। তখন বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উন্মুক্ত হয়ে ফ্যালকন-৯ রকেট থেকে সম্পূর্ণ আলাদা হয়ে যাবে। ফ্যালকন-৯ থেকে ডেপ্লয়মেন্টের পর এর নিয়ন্ত্রণ চলে আসবে এটার নির্মাতা থ্যালাস অ্যালানিয়ার হাতে। থ্যালাস অ্যালানিয়ার ফ্রান্সের কানে স্থাপিত গ্রাউন্ড স্টেশন থেকে নিয়ন্ত্রণ করে আস্তে আস্তে জিওসিনক্রোনাস ট্রান্সফার অরবিট থেকে ৩৫ হাজার ৭৯০ কিলোমিটার উচ্চতার জিওস্টেশনারি অরবিটের দিকে নিয়ে যাবে। ৩৫ হাজার ৭৯০ কিলোমিটার থেকে বেশি উচ্চতার নিরক্ষীয় রেখার ওপর অবস্থিত স্যাটেলাইটের কক্ষপথগুলোকে বলা হয় জিওস্টেশনারি অরবিট। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের জন্য নির্ধারিত কক্ষপথ হলো ১১৯ দশমিক ১ ডিগ্রি উত্তর। গ্লোবাল পজিশন সিস্টেমে বাংলাদেশের অবস্থান ৯০ ডিগ্রি উত্তরে। তার মানে, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের সঙ্গে যোগাযোগ করতে হলে বাংলাদেশে স্থাপিত অ্যানটেনাগুলোকে দক্ষিণ-পূর্ব দিকে ৩০ ডিগ্রি বাঁকা করে রাখতে হবে। আমরা যদি ভূপৃষ্ঠের সঙ্গে ধরি, তাহলে আমাদের বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটটি ইন্দোনেশিয়ার ঠিক ওপরে অবস্থান করবে।

গ্রাউন্ড স্টেশন থেকে স্যাটেলাইটকে ওই কক্ষপথে নিয়ে যাওয়ার ব্যাপারটি সহজ নয়। একজন অন্ধ লোককে শুধু মোবাইলে নির্দেশনা দিয়ে এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় পৌঁছে দেওয়ার মতোই কঠিন। ভূপৃষ্ঠ থেকে কোনো একদিকে যাওয়ার কমান্ড স্যাটেলাইটকে পাঠানো হবে। স্যাটেলাইট সেই অনুযায়ী প্রপেলার পরিচালনা করে যেতে থাকবে। আর গ্রাউন্ড স্টেশনকে জানাতে থাকবে কতটুকু এগোল। এভাবে খুব ধীরে স্যাটেলাইটে জমানো জ্বালানি পুড়িয়ে নির্দিষ্ট জায়গায় নিয়ে যাওয়া হবে। এটা অত্যন্ত ধীরগতির প্রক্রিয়া।

জিওসিনক্রোনাস ট্রান্সফার অরবিট থেকে আমাদের জন্য নির্ধারিত ১১৯ দশমিক ১ ডিগ্রি উত্তর দ্রাঘিমায় স্থাপন করা হবে। এর জন্য সময় লাগবে ৮ থেকে ১০ দিন। কক্ষপথে স্থাপনের পর এই স্যাটেলাইটের নিয়ন্ত্রণ শুরু হবে বাংলাদেশের গাজীপুরে স্থাপিত গ্রাউন্ড স্টেশন থেকে। এই গ্রাউন্ড স্টেশন থেকেই প্রায় এক মাস ধরে কিছু ইন অরবিট টেস্ট করা হবে (IOT)। এরপরই এটি বাণিজ্যিকভাবে ব্যবহার করার উপযোগী হয়ে উঠবে।

গ্রাউন্ড স্টেশন থেকে দুইভাবে নিয়ন্ত্রণ করা হবে উপগ্রহটিকে। একটি হবে ভারসাম্য নিয়ন্ত্রণ, আরেকটি হবে কমিউনিকেশন নিয়ন্ত্রণ। ভারসাম্য নিয়ন্ত্রণ হবে মূলত স্বয়ংক্রিয়ভাবে, কিন্তু মাঝেমধ্যে গ্রাউন্ড স্টেশন থেকে নিয়ন্ত্রণ করতে হতে পারে।

এটা বাণিজ্যিক উপগ্রহ। কাজেই কাকে কতটুকু ফ্রিকোয়েন্সি বরাদ্দ করা হয়েছে, কী ধরনের এনক্রিপশন ব্যবহার করা হয়েছে, এসব পর্যবেক্ষণ করা হবে গ্রাউন্ড স্টেশন থেকে। তবে ২৪ ঘণ্টা সিগন্যালের শক্তি পর্যবেক্ষণ করে ঠিক রাখাই হবে গ্রাউন্ড স্টেশনের মূল কাজ। মূলত দুই ধরনের বাণিজ্যিক কাজে আমাদের বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট ব্যবহৃত হবে—টেলিভিশন সম্প্রচার আর টেলিকমিউনিকেশন। টেলিভিশন চ্যানেলগুলো তাদের অনুষ্ঠানমালাকে ট্রান্সমিটার আর ডিশ অ্যানটেনা দিয়ে প্রেরণ করবে উপগ্রহের দিকে। প্রায় ৩৬ হাজার কিলোমিটার পাড়ি দেওয়া সেই সিগন্যালে অপ্রয়োজনীয় ও অবাঞ্ছিত তরঙ্গ ঢুকে পড়তে পারে। উপগ্রহ সেগুলোকে ফিল্টার করবে, তারপর আবার এমপ্লিফাই করে সেই সিগন্যালকে পৃথিবীর দিকে প্রেরণ করবে কৃত্রিম উপগ্রহ। এবার স্যাটেলাইট টিভি ব্যবসায়ীরা তাঁদের ভিস্যাট অ্যানটেনা দিয়ে এই সিগন্যাল গ্রহণ করে তা আমাদের ঘরে ঘরে পৌঁছে দেবেন। তবে এখন ক্ষুদ্রাকৃতির কিছু ডিশ অ্যানটেনা এসেছে। সেগুলো দিয়ে সরাসরি সেট-টপ বক্সের মাধ্যমে টিভিতে দেখতে পাই। এই সার্ভিসকে বলা হয় ডাইরেক্ট টু হোম (DTH)।

স্যাটেলাইট টিভি রিসিভারে এ ধরনের ডেক্রিপশনের অপশন রেখেই তৈরি করা হয়। টিভি স্টেশন থেকে কৃত্রিম উপগ্রহ ঘুরে আমাদের টিভিতে সিগন্যাল পৌঁছানো পর্যন্ত প্রায় ৭২ হাজার কিলোমিটার পথ পাড়ি দিতে হয়। কিন্তু পুরো প্রক্রিয়াটা সম্পন্ন হতে সময় লাগে মাত্র সেকেন্ডের তিন ভাগের এক ভাগ। স্যাটেলাইট ব্যবহার করে ইন্টারনেটের ডেটা আদান-প্রদানের কাজও প্রায় একই রকমভাবে হয়। এ ক্ষেত্রে দুই জায়গাতেই ট্রান্সিভার বা একই সঙ্গে আদান ও প্রদান দুটি কাজেরই উপযোগী যোগাযোগব্যবস্থা থাকতে হবে। স্যাটেলাইটের সঙ্গে যোগাযোগে সক্ষম যেকোনো কমিউনিকেশন সিস্টেমই এই স্যাটেলাইটের দৃষ্টিসীমানায় থাকা অন্য যেকোনো কমিউনিকেশন সিস্টেমের সঙ্গে যোগাযোগ করতে সক্ষম হবে। সরকার যদি চায় স্কুল-কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় বা হাসপাতালে স্যাটেলাইটের মাধ্যমে দূরশিক্ষণ বা টেলিচিকিত্সার প্রবর্তন করা সম্ভব এই উপগ্রহের মাধ্যমে। যদিও সেটা হবে অত্যন্ত ব্যয়বহুল। কারণ প্রতিটি প্রতিষ্ঠানেই একটি করে ভিস্যাট স্থাপন করতে হবে। স্যাটেলাইট কমিউনিকেশনের সবচেয়ে বড় সুবিধা হলো নিরবচ্ছিন্নতার নিশ্চয়তা ও বিস্তৃত কাভারেজ। আর সবচেয়ে বড় অসুবিধা হলো ব্যয়বহুল এবং ধীরগতি।

গাজীপুরের জয়দেবপুরে থ্যালাস অ্যালানিয়া কোম্পানির সহায়তায় মূল গ্রাউন্ড স্টেশনটি ইতিমধ্যে স্থাপিত হয়েছে। এখান থেকেই এই সমস্ত কমিউনিকেশন ও নিয়ন্ত্রণ করা হবে। একই রকম আরেকটি আপত্কালীন গ্রাউন্ড স্টেশন স্থাপন করা হয়েছে রাঙামাটির বেতবুনিয়ায়। বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটের সার্ভিসগুলো হলো ভিস্যাট অ্যানটেনা ব্যবহার করে ডাইরেক্ট টু হোম (DTH), টিভি সম্প্রচার এবং ইন্টারনেট সেবা পাওয়া যাবে। কাজেই এই উপগ্রহ বাংলাদেশের টেকনোলজির ইতিহাসে এক অনন্য উদাহরণ হতে যাচ্ছে।

স্যাটেলাইট হলো প্রযুক্তির সর্বোচ্চ চূড়া। বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট এবং ব্র্যাক অন্বেষা স্যাটেলাইটের মাধ্যমে আমরা প্রযুক্তির উত্কর্ষের অভিজ্ঞতাই শুধু অর্জন করলাম তা নয়; প্রযুক্তির জ্ঞানও আমরা অর্জন করলাম। ভবিষ্যতে আরও স্যাটেলাইট বা অন্য যেকোনো প্রযুক্তি বিকাশে এই ভাবমূর্তি আমাদের ভীষণ কাজে আসবে। আমাদের তরুণ প্রজন্ম শুধু এই প্রযুক্তির জ্ঞান আহরণ ও ব্যবহারে আগ্রহী হবে। সঙ্গে সঙ্গে তারা নতুন জ্ঞান সৃষ্টিতেও বিরাট ভূমিকা রাখতে সমর্থ হবে। অন্যদিকে বিশ্বদরবারে একটি ইতিবাচক ভাবমূর্তি তৈরি হবে আমাদের। বিজ্ঞান ও প্রকৌশল প্রযুক্তির বাণিজ্যিক ব্যবহারকারী হিসেবে আজ আমরা এই প্রযুক্তির বাজারে প্রবেশ করছি। কিন্তু আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, একদিন আমরা স্যাটেলাইট, রোবটিকস, আইওটিসহ অন্যান্য উচ্চ প্রযুক্তির নির্মাতা হিসেবে বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়াব। আমাদের সেই সক্ষমতা আছে, এখন দরকার আত্মবিশ্বাস ও প্রস্তুতি।

0 টি ভোট
করেছেন (28,740 পয়েন্ট)
স্যাটেলাইট মূলত একটি অবজেক্ট, যেখানে শুধু বলকে কাজে লাগানো হয়ে থাকে। স্যাটেলাইট অনেক দ্রুত অতিক্রম করতে থাকে ফলে, এটা মহাকাশেই ভেসে থাকে, পৃথিবীতে ছিটকে পরে না। পৃথিবীর কনভেন্টর তাকে মহাকাশে গমন করতে সাহায্য করে এবং পৃথিবীতে পুনরায় ফিরে আসার ক্ষেত্রে বাধা প্রদান করে।
0 টি ভোট
করেছেন (4,210 পয়েন্ট)
আধুনিক প্রযুক্তি ও বিজ্ঞানের এক অবিশ্বাস্য বিস্ময় স্যাটেলাইট। আমাদের দৈনন্দিন জীবন ও কাজের সঙ্গে স্যাটেলাইট প্রযুক্তি বেশ ঘনিষ্ট ভাবে জড়িত। কোনোই সন্দেহ নেই যে, স্যাটেলাইট ছাড়া সম্ভব হত না অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজই।

★স্যাটেলাইট জিনিসটা আসলে কী? এটি কি কাজই-বা করে ? স্যাটেলাইট কিভাবে কাজ করে?

স্যাটেলাইট শব্দটা এসেছে মূলত ল্যাটিন থেকে, যার ইংরেজি অর্থ করলে দাঁড়ায় ‘অনুসরণ করা’। স্যাটেলাইট হল এমন একটি অবজেক্ট(বস্তু), যা আরেকটি বড় অবজেক্টকে কেন্দ্র করে প্রদক্ষিণ করে।

এখন আপনার প্রশ্ন হতে পারে পৃথিবীও তাহলে একটি স্যাটেলাইট? উত্তর হল হ্যা, পৃথিবীও একটি স্যাটেলাইট। কারন সূর্যকে প্রদক্ষিণ করে ঘুরছে পৃথিবী। ঠিক একইভাবে, চাঁদও একটি স্যাটেলাইট কারণ তা পৃথিবীকে প্রদক্ষিণ করে। কিন্তু এগুলো প্রাকৃতিক।

তবে সাধারণভাবে স্যাটেলাইট শব্দটি দিয়ে আমরা বুঝি মানুষ্য তৈরি স্যাটেলাইট বা কৃত্রিম উপগ্রহ। এটি এমন যন্ত্র যা মহাশূণ্যে উৎক্ষেপণ করার পর, পৃথিবী বা মহাকাশে থাকা অন্য কোন বডিকে প্রদক্ষিণ করছে। মূলত মানুষ তার নানাবিধ কাজের জন্য বিজ্ঞানের উৎকর্ষতাকে কাজে লাগিয়ে মহাকাশে এ স্যাটেলাইট বা কৃত্রিম উপগ্রহ প্রেরণ করে।

বর্তমানে মহাকাশে প্রায় (সরকারী-বেসরকারী) কয়েক হাজার কৃত্রিম বা মানুষের-তৈরী স্যাটেলাইট পৃথিবীকে প্রদক্ষিণ করছে। আর এ প্রত্যেকটি স্যাটেলাইট আলাদা আলাদা কাজে নিয়োজিত। এদের মধ্যে কোনোটি পৃথিবীর ছবি তুলে, আবার কোনোটি অন্যান্য গ্রহের ছবি সংগ্রহ করে। কোনোটা আবার আবহাওয়ার পূর্বাভাস দিতে এবং হারিকেনের গতিপথের উপর নজর রাখতে আবহাওয়াবিদদের সহায়তা করে। পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগের আভাস দিতেও সাহায্য করছে স্যাটেলাইট।

এদের মধ্যে কিছু স্যাটেলাইট আবার গ্রহ, সূর্য, কৃষ্ণবিবর বা দূরবর্তী ছায়াপথ এর ছবি নিতে কক্ষপথে ঘুরছে। এছাড়াও এমন কিছু উপগ্রহ রয়েছে যারা মূলত যোগাযোগের মাধ্যম হিসেবে ব্যবহার হয়; যেমন টিভি সিগন্যাল, বিশ্বজুড়ে ফোন কল এর সংযোগ স্থাপন, ইত্যাদি কাজে ব্যাবহার করা হয়।

আর ২০টিরও বেশী স্যাটেলাইট নিয়ে গ্লোবাল পজিশনিং সিস্টেম বা জিপিএস গঠিত। আপনার কাছে যদি জিপিএস রিসিভার থাকে তাহলে এসব স্যাটেলাইট আপনার নির্ভুল অবস্থান সনাক্ত করতে সক্ষম।

★কী কী অংশ নিয়ে স্যাটেলাইট গঠিত ?

স্যাটেলাইট বিভিন্ন আকার, আকৃতি ও আয়তনের হয়। তবে প্রত্যেক স্যাটেলাইটে সাধারণত ২টি অংশ থাকে। অ্যান্টেনা এবং শক্তির উৎস (পাওয়ার সোর্স)।

অ্যান্টেনা: তথ্য গ্রহণ ও সংগ্রহের কাজ করে অ্যান্টেনা। অ্যান্টেনা মূলত পৃথিবী থেকে তথ্য আদান প্রদান করে। বিভিন্ন ধরনের অ্যান্টেনা রয়েছে যেমন-মনোপোল, ডিপোল হর্ণ, প্রতিফলক, পারাবোলিক, মাইক্রোস্ট্রিপ ইত্যাদি। মূলত স্যাটেলাইটে ব্যবহৃত অ্যাপ্লিকেশনের উপর নির্ভর করে অ্যান্টেনার ধরণ।

সৌর কোষ এবং ব্যাটারি ব্যাকআপ: শক্তির উৎস হিসেবে সোলার প্যানেল এবং ব্যাটেরি থাকে। সোলার প্যানেলগুলি বিদ্যুতের মধ্যে সূর্যালোক বাঁক করে শক্তি তৈরি করে। স্যাটেলাইটে চলমান রাখার জন্য সোলার সেল এবং ব্যাটারির অত্যধিক প্রয়োজন। সূর্যালোকের উপস্থিতিতে শক্তির উৎস হিসেবে কাজ করে সোলার সেল। আর যদি সূর্যালোক না থাকলে ব্যাটারি শক্তির উৎস হিসেবে কাজ করে। নাসার অনেক স্যাটেলাইটগুলো ক্যামেরা ও বৈজ্ঞানিক সেন্সর বহন করে।

★কিভাবে স্যাটেলাইট পাঠানো হয় এবং পৃথিবী প্রদক্ষিণ করে?

বেশীর ভাগ স্যাটেলাইটকে রকেট বা স্পেস শাটলের কার্গো বে-এর মাধ্যমে কক্ষপথে পাঠানো হয়। পৃথিবীর অভিকর্ষ পার হতে রকেটকে ঘণ্টায় ২৫ হাজার ৩৯ মাইল ত্বরণে ছুটতে হয়। পৃথিবীর টান ও মাধ্যাকর্ষণ শক্তির মধ্যে যখন ভারসাম্য তৈরী হয় তখনই কোন স্যাটেলাইট প্রদক্ষিণ করতে পারে।

কৃত্রিম উপগ্রহ স্থাপনের সময় কক্ষীয় গতি ও তার জড়তার ওপর পৃথিবীর অভিকর্ষের যে প্রভাব রয়েছে, এই ভারসাম্য ছাড়া স্যাটেলাইট মহাশূণ্যে একটি সরল রেখায় উড়বে অথবা পৃথিবীতে পতিত হবে। এ জন্য কৃত্রিম উপগ্রহকে ১৫০ মাইল উচ্চতাবিশিষ্ট কক্ষপথে প্রতি ঘণ্টায় প্রায় ১৭ হাজার মাইল গতিতে পরিভ্রমণ করানো হয়।

মূলত গতিবেগ কত হবে, তা নির্ভর করে কৃত্রিম উপগ্রহটি পৃথিবী থেকে কত উচ্চতায় রয়েছে, তার ওপর। পৃথিবী থেকে ২২ হাজার ২২৩ মাইল উপরে স্থাপিত স্যাটেলাইট ঘণ্টায় ৭০০ মাইল বেগে পৃথিবীকে আবর্তন করে। পৃথিবীর সঙ্গে কৃত্রিম উপগ্রহগলোও ২৪ ঘণ্টা ঘোরে। টিভি ও বেতারসংকেত প্রেরণ এবং আবহাওয়া পর্যবেক্ষণকারী কৃত্রিম উপগ্রহগুলো সাধারণত পৃথিবী থেকে ৩৬ হাজার কিলোমিটার দূরে অবস্থান করে।

স্যাটেলাইটগুলো ভিন্ন ভিন্ন উচ্চতা, গতি ও পথে প্রদক্ষিণ করে। তবে দুটি কমন কক্ষপথ হলো- জিওস্টেশনারী এবং পোলার।

জিওস্টেশনারী স্যাটেলাইট বিষুব রেখার উপর দিয়ে পশ্চিম থেকে পূর্ব দিকে ভ্রমণ করে। পৃথিবীর ঘূর্ণনের সাথে তাল রেখে এ স্যাটেলাইট একই দিকে অগ্রসর হয় বলে পৃথিবী থেকে মনে হয় জিওস্টেশনারী স্যাটেলাইট একই স্থানে স্থির হয়ে দাঁড়িয়ে আছে।

পোলার স্যাটেলাইট উত্তর থেকে দক্ষিণ অভিমুখে এক মেরু থেকে আরেক মেরুতে ভ্রমণ করে। পৃথিবী নিচের দিকে ঘোরে বলে এইসব স্যাটেলাইট দিয়ে একই সময়ে পুরো পৃথিবীর চিত্রধারণ সম্ভব হয়।

স্যাটেলাইটগুলোর মধ্যে সংঘর্ষ হয় না কারণ, একটি স্যাটেলাইট যেন অন্য স্যাটেলাইটকে এড়িয়ে চলতে পারে সেজন্য উৎক্ষেপণের সময় তা নিশ্চিত করেই কক্ষপথে স্থাপন করা হয়। তবে নাসা এবং অন্যান্য আন্তর্জাতিক সংস্থা স্যাটেলাইটের গতিপথের উপর নজর রাখে। ফলে সংঘর্ষ হয় না বললেই চলে। ২০০৯ সালের ফেব্রুয়ারী মাসে মহাশূণ্যে দুটি আমেরিকান ও রাশিয়ান স্যাটেলাইটের মধ্যে সংঘর্ষ হয় যা মানুষের তৈরি স্যাটেলাইটের মধ্যে প্রথম সংঘর্ষের ঘটনা।

★কিভাবে কাজ করে স্যাটেলাইট?

পৃথিবী থেকে বেতার তরঙ্গ ব্যবহার করে তথ্য পাঠানো হয়, কৃত্রিম উপগ্রহ সেগুলো গ্রহণ করে এবং বিবর্ধিত (এমপ্লিফাই) করে পৃথিবীতে পুনরায় প্রেরণ করে। কৃত্রিম উপগ্রহ দুইটি ভিন্ন কম্পাঙ্কের তরঙ্গ ব্যবহার করে সিগনাল (তথ্য) গ্রহণ এবং পাঠানোর জন্য। কৃত্রিম উপগ্রহ থেকে পৃথিবীতে আসা সিগনাল অনেক দুর্বল বা কম শক্তিসম্পন্ন হয়ে থাকে, তাই প্রথমে ডিস এন্টেনা ব্যবহার করে সিগনালকে কেন্দ্রীভূত করা হয় এবং পরে রিসিভার দিয়ে গ্রহণ করে প্রয়োজনীয় কাজে ব্যবহার করা হয় ।
0 টি ভোট
করেছেন (33,350 পয়েন্ট)
Satellite কিভাবে কাজ করে ?
কৃত্রিম উপগ্রহ এমনভাবে পৃথিবীর চতুর্দিকে ঘূর্ণায়মান হয়, যাতে এর গতির সেন্ট্রিফিউগাল বা বহির্মুখীন শক্তি ওকে বাইরের দিকে গতি প্রদান করে কিন্তু পৃথিবীর মধ্যাকর্ষণ শক্তি একে পৃথিবীর আওতার বাইরে যেতে দেয় না। উভয় শক্তি কৃত্রিম উপগ্রহকে ভারসাম্য প্রদান করে এবং কৃত্রিম উপগ্রহটি পৃথিবীর চতুর্দিকে প্রদক্ষিণ করে। যেহেতু মহাকাশে বায়ুর অস্তিত্ব নেই তাই বাধাহীনভাবে পরিক্রমণ করে, যতক্ষণ পর্যন্ত না তা পৃথিবীর নিকটতম স্থানে প্রবেশ করে এবং উচ্চস্তরীয় বায়ুমণ্ডল কৃত্রিম উপগ্রহকে টেনে আনবে এবং তার গতি মন্থর করে দেবে। কৃত্রিম উপগ্রহগুলো বৃত্তাকারে পরিক্রমণ করে না, তার গতি ডিম্বাকৃতির।

টিভি ও বেতারসংকেত প্রেরণ এবংআবহাওয়া পর্যবেক্ষণকারী কৃত্রিম উপগ্রহগুলো সাধারণত পৃথিবীথেকে ৩৬ হাজার কিলোমিটার দূরে অবস্থান করে।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

+5 টি ভোট
1 উত্তর 981 বার দেখা হয়েছে
02 মে 2021 "জ্যোতির্বিজ্ঞান" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Ubaeid (28,310 পয়েন্ট)
+22 টি ভোট
2 টি উত্তর 1,194 বার দেখা হয়েছে
+1 টি ভোট
1 উত্তর 251 বার দেখা হয়েছে
19 অক্টোবর 2021 "জীববিজ্ঞান" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Mehedy Hasan (1,310 পয়েন্ট)
+4 টি ভোট
2 টি উত্তর 1,366 বার দেখা হয়েছে
18 এপ্রিল 2021 "পদার্থবিজ্ঞান" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Hasan Rizvy Pranto (39,270 পয়েন্ট)

10,744 টি প্রশ্ন

18,397 টি উত্তর

4,731 টি মন্তব্য

243,977 জন সদস্য

29 জন অনলাইনে রয়েছে
0 জন সদস্য এবং 29 জন গেস্ট অনলাইনে
  1. MIS

    990 পয়েন্ট

  2. shuvosheikh

    320 পয়েন্ট

  3. তানভীর রহমান ইমন

    160 পয়েন্ট

  4. unfortunately

    120 পয়েন্ট

  5. Muhammad_Alif

    120 পয়েন্ট

বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় উন্মুক্ত বিজ্ঞান প্রশ্নোত্তর সাইট সায়েন্স বী QnA তে আপনাকে স্বাগতম। এখানে যে কেউ প্রশ্ন, উত্তর দিতে পারে। উত্তর গ্রহণের ক্ষেত্রে অবশ্যই একাধিক সোর্স যাচাই করে নিবেন। অনেকগুলো, প্রায় ২০০+ এর উপর অনুত্তরিত প্রশ্ন থাকায় নতুন প্রশ্ন না করার এবং অনুত্তরিত প্রশ্ন গুলোর উত্তর দেওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি। প্রতিটি উত্তরের জন্য ৪০ পয়েন্ট, যে সবচেয়ে বেশি উত্তর দিবে সে ২০০ পয়েন্ট বোনাস পাবে।


Science-bee-qna

সর্বাপেক্ষা জনপ্রিয় ট্যাগসমূহ

মানুষ পানি ঘুম পদার্থ - জীববিজ্ঞান এইচএসসি-উদ্ভিদবিজ্ঞান এইচএসসি-প্রাণীবিজ্ঞান পৃথিবী চোখ রোগ রাসায়নিক শরীর রক্ত আলো #ask মোবাইল ক্ষতি চুল কী চিকিৎসা পদার্থবিজ্ঞান সূর্য প্রযুক্তি #science স্বাস্থ্য প্রাণী বৈজ্ঞানিক মাথা গণিত মহাকাশ পার্থক্য এইচএসসি-আইসিটি #biology বিজ্ঞান খাওয়া গরম শীতকাল #জানতে কেন ডিম চাঁদ বৃষ্টি কারণ কাজ বিদ্যুৎ রাত রং উপকারিতা শক্তি লাল আগুন সাপ মনোবিজ্ঞান গাছ খাবার সাদা আবিষ্কার দুধ উপায় হাত মশা মাছ ঠাণ্ডা মস্তিষ্ক শব্দ ব্যাথা ভয় বাতাস স্বপ্ন তাপমাত্রা গ্রহ রসায়ন উদ্ভিদ কালো পা কি বিস্তারিত রঙ মন পাখি গ্যাস সমস্যা মেয়ে বৈশিষ্ট্য হলুদ বাচ্চা সময় ব্যথা মৃত্যু চার্জ অক্সিজেন ভাইরাস আকাশ গতি দাঁত আম হরমোন বিড়াল কান্না
...