ডিএনএ রেপ্লিকেশন এর প্রক্রিয়া কী? - ScienceBee প্রশ্নোত্তর

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির প্রশ্নোত্তর দুনিয়ায় আপনাকে স্বাগতম! প্রশ্ন-উত্তর দিয়ে জিতে নিন পুরস্কার, বিস্তারিত এখানে দেখুন।

+1 টি ভোট
2,187 বার দেখা হয়েছে

3 উত্তর

0 টি ভোট
করেছেন (141,820 পয়েন্ট)
নির্বাচিত করেছেন
 
সর্বোত্তম উত্তর
ডিএনএ রেপ্লিকেশন প্রক্রিয়া:

১। ডিএনএ ডাবল হেলিক্সের মধ্যে "অরি" নির্ধারণ করা হয় আর "অরি" হচ্ছে সেই স্থান যেখানে রেপ্লিকেশনের সূচনা ঘটবে।

২। ডিএনএ রেপ্লিকেশন প্রক্রিয়াতে একাধিক উপাদান প্রয়োজন এবং সকল উপাদান সক্রিয় হবে যখন তারা ডিএনএ "অরি"-র কাছাকাছি সংযুক্ত হতে পারবে। ডিএনএ যতক্ষণ হেলিক্স আকারে বা প্যাঁচানো আকারে থাকবে, ততক্ষণ কোনো এনজাইম বা অন্যান্য উপাদান ডিএনএর সাথে সংযুক্ত হয়ে রেপ্লিকেশন শুরু করতে পারবেনা। তাই সবচেয়ে আগে টপোআইসোমারেজ এনজাইমের সাহায্যে ডিএনএ ডাবল হেলিক্সের পাক খোলা হয় এবং প্রত্যেক ঘূর্ণনের মধ্যে থাকা নাইট্রোজেন ক্ষারের মধ্যকার হাইড্রোজেন বন্ড বিচ্ছিন্ন করা হয়। হেলিকেজ এনজাইম সম্পূর্ণ প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন করে এবং হেলিক্স অর্থাৎ যে প্যাঁচ রয়েছে সেরকম দুটিকে আলাদা করে "রেপ্লিকেশন ফর্ক" তৈরি করে।

৩। হাইড্রোজেন বন্ড বিচ্ছিন্ন হওয়ার পর, ডাবল হেলিক্সের ২টি সূত্র আলাদা হয়ে যায় এবং প্রত্যেকটি সূত্র একটি করে টেমপ্লেট/ছাঁচ হিসেবে ভূমিকা পালন করে। একটা টেমপ্লেটের দিক হয় 5’ থেকে 3’ এবং বিপরীত টেমপ্লেটের দিক হয় 3’ থেকে 5’। সিঙ্গেল স্ট্র্যান্ড বাইন্ডিং প্রোটিন টেমপ্লেট স্ট্র্যান্ডগুলোকে রেপ্লিকেশন চলাকালীন সময়ে পুনরায় হেলিক্স গঠন করা থেকে বিরত রাখে।

৪। প্রাইমেজ এনজাইম ছাঁচের সাথে সামঞ্জস্য রেখে প্রাইমার সংযুক্ত করে এবং এই প্রাইমার সংযোজনই রেপ্লিকেশন শুরু হওয়ার নির্দেশ। প্রাইমারে একটি মুক্ত 3’-OH গ্রুপ থাকে যার সাথে পরবর্তীতে নতুন নিউক্লিয়োটাইড ট্রাইফসফেট সংযুক্ত হয়।

৫। ডিএনএ পলিমারেজ প্রাইমারের 3’-OH গ্রুপের সাথে নতুন নতুন নিউক্লিয়োটাইড ট্রাইফসফেট সংযুক্ত করে। সংযোজনের সময় ট্রাইফসফেটের একটা ফসফেট নিউক্লিইয়োসাইডের সাথে যুক্ত থাকে (নিউক্লিয়োটাইড গঠন করে) এবং বাকি ২টা ফসফেট পাইরোফসফেট হিসেবে মুক্ত হয়ে যায়। প্রাইমারের 3’-OH গ্রুপের সাথে নিউক্লিয়োটাইডের 5’- প্রান্তে অবস্থিত ফসফেট গ্রুপের সংযোজন ঘটে তাই নতুন সৃষ্ট ডিএনএ হেলিক্স সবসময় 5 থেকে 3’এর দিকে বৃদ্ধি পেতে থাকে।

৬। নতুন সৃষ্ট ডিএনএর ক্ষার, টেমপ্লেট ডিএনএর ক্ষারের সাথে হাইড্রোজেন বন্ডের মাধ্যমে সংযুক্ত হয়। এডেনিন(A) এর সাথে থাইমিন(T) ২টা হাইড্রোজেন বন্ডের (A=T) মাধ্যমে সংযুক্ত হয় এবং সাইটোসিনের(C) সাথে গুয়ানিন(G) ৩টা হাইড্রোজেন বন্ডের(G ≡ C) মাধ্যমে সংযুক্ত থাকে। নতুন সৃষ্ট স্ট্র্যান্ডে কোন কোন ক্ষার  থাকবে তা নির্ভর করবে টেমপ্লেট স্ট্র্যান্ডের ক্ষারের ওপর। ডিএনএ টেমপ্লেটের যেই প্রান্ত রেপ্লিকেশন ফর্কের বিপরীতে অবস্থিত, ডিএনএ পলিমারেজ সেই প্রান্ত থেকে নতুন স্ট্র্যান্ডের সংশ্লেষণ শুরু করে।

৭। ডিএনএ পলিমারেজের আরেকটা কাজ হচ্ছে ডিএনএর "প্রুফরিডিং" করা। নতুন স্ট্র্যান্ড তৈরি হওয়ার সময় ভুল ক্ষার/বেস -পেয়ারিং হতে পারে। এগুলোকে বলা হয় "মিসম্যাচ"। ডিএনএ পলিমারেজ এই ধরনের ভুলকে সংশোধন করতে পারে।

৮। 3’→5’ টেমপ্লেট স্ট্র্যান্ডের পরিপূরক হিসেবে যেই স্ট্র্যান্ড তৈরি হয় তাকে বলা হয় লিডিং স্ট্র্যান্ড। লিডিং স্ট্র্যান্ডটা খুব সহজেই নিরবিচ্ছিন্ন ভাবে সংশ্লেষিত হয় কারণ 3’→5’ টেমপ্লেট স্ট্র্যান্ডের 5’ প্রান্ত থাকে রেপ্লিকেশন ফর্কের বিপরীত দিকে তাই তার পরিপূরক নতুন স্ট্র্যান্ডের দিক স্বাভাবিকভাবেই 3’→5’ হয় এবং এই স্ট্র্যান্ডটি রেপ্লিকেশন ফর্কের দিকে বৃদ্ধি পেতে থাকে।

৯। 5’→3’ টেমপ্লেট স্ট্র্যান্ডের পরিপূরক হিসেবে যেই স্ট্র্যান্ড তৈরি হয় তাকে বলা হয় ল্যাগিং স্ট্র্যান্ড । ল্যাগিং স্ট্র্যান্ডের রেপ্লিকেশন একটু ভিন্ন ধরনের।3’→5’ টেমপ্লেট স্ট্র্যান্ডের 5’ প্রান্তটি রেপ্লিকেশন ফর্কের বিপরীত দিকে অবস্থিত। যেহেতু সবসময় বলা হচ্ছে, নতুন সংশ্লেষিত স্ট্র্যান্ডের দিক টেমপ্লেটের বিপরীত হবে সেজন্য নতুন স্ট্র্যান্ডের দিক 3’→5’ হওয়ার কথা। কিন্তু এটা সম্ভব না কেনোনা নতুন নিউক্লিয়োটাইড কখনো 5’ প্রান্তে যোগ হতে পারেনা। তাই ল্যাগিং স্ট্র্যান্ডের সংশ্লেষণ ছোট ছোট খণ্ডে হয় যাকে বলা হয় "okazaki খণ্ড"। প্রত্যেকটা খণ্ডের সংশ্লেষণের জন্য প্রাইমার যোগ হয় এবং প্রাইমারের 3’ প্রান্তে নতুন নিউক্লিয়োটাইড সংযুক্ত হয়। এভাবে বিচ্ছিন্নভাবে রেপ্লিকেশন ফর্কের দিকে নতুন সংশ্লেষিত হওয়া ডিএনএ স্ট্র্যান্ড বৃদ্ধি পেতে থাকে।

১০। রেপ্লিকেশন সম্পূর্ণ হয়ে গেলে RNase H যা একটি Endonuclease enzyme আরএনএ প্রাইমারগুলোকে অপসারণ করে।

১১। অপসারণের ফলে নতুন সংশ্লেষিত স্ট্র্যান্ডের মধ্যে কিছু ফাঁকা অংশ দেখা যায়। এই ফাঁকা অংশগুলোতে ডিএনএ পলিমারেজ নতুন নিউক্লিয়োটাইড  যোগ করে যার পরিপূরক নিউক্লিয়োটাইড টেমপ্লেট স্ট্র্যান্ডে থাকে।

১২। অবশেষে ডিএনএ "লাইগেজ" টেমপ্লেট ও নতুন সংশ্লেষিত স্ট্র্যান্ডগুলোকে জোড়া লাগায় এবং স্ট্র্যান্ডগুলো আবার হেলিক্স গঠন করে। নতুন সৃষ্ট ডাবল হেলিক্সের একটা স্ট্র্যান্ড নতুন এবং আরেকটা স্ট্র্যান্ড পুরনো তাই ডিএনএ রেপ্লিকেশনের প্রক্রিয়াকে বলা হয় "অর্ধ-সংরক্ষণশীল (Semi-Conservative)" পদ্ধতি।
+1 টি ভোট
করেছেন (28,740 পয়েন্ট)
রেপ্লিকেশন ফর্ক একটি কাঠামো যা ডিএনএ প্রতিলিপি চলাকালীন দীর্ঘ হেলিকাল ডিএনএর মধ্যে উৎপন্ন হয়। এটি হেলিকেজ দ্বারা তৈরি করা হয়, যা হেলিক্সে দুটি ডিএনএ স্ট্র্যান্ডকে ধরে রেখে হাইড্রোজেন বন্ধনগুলো ভেঙে দেয়। ফলস্বরূপ কাঠামোতে দুটি শাখা "কাঁটা" রয়েছে, যার প্রত্যেকটিই ডিএনএর একক স্ট্র্যান্ড দ্বারা গঠিত।
0 টি ভোট
করেছেন (141,820 পয়েন্ট)
DNA Replication (ডিএনএ অনুলিপন) প্রক্রিয়া:

১. DNA এর যে নির্দিষ্ট স্থান থেকে প্রতিলিপন শুরু হয় তাকে বলে অরি বা সূচনা বিন্দু।

২. প্রতিলিপনের শুরুতে হেলিকেজ এনজাইম অরি অংশ থেকে দ্বিসূত্রক DNA এর মধ্যে হাইড্রোজেন বন্ডগুলো ভেঙ্গে দেয়। ফলে এটি এক সূত্রকে পরিণত হয়।

৩. এরপর প্রত্যেক সূত্রকের গায়ে SSBP (Single Strand Binding Protein) যুক্ত হয়, যার ফলে সূত্রকদ্বয় পুনরায় একত্র হতে না পরে। সূত্রক দুইটি পৃথক হওয়ায় DNA তে Y আকৃতির রেপ্লিকেশন ফর্ক সৃষ্টি হয়।

৪. পৃথক হওয়া প্রত্যেকটি সূত্রক তার সম্পূরক তৈরীর ছাঁচ হিসাবে কাজ করে।

৫. ছাঁচের ভিত্তিতে প্রাইমেজ এনজাইম ২-১০০ নিউক্লিওটাইড যুক্ত করে ক্ষুদ্র RNA খন্ডক তৈরি করে, একে প্রাইমার বলে।

৬. DNA পলিমারেজ শুধু ৩ʹ প্রান্তে নিউক্লিওটাইড যুক্ত করে, এজন্য নতুন সূত্র সবসময় ৫ʹ → ৩ʹ মুখী হয়ে বৃদ্ধি পায়। কোন নিউক্লিওটাইড এর পর কোন নিউক্লিওটাইড যুক্ত হবে তা নির্ভর করে ছাঁচের উপর। যেমন: ছাঁচের বেসের অণুক্রম ATTGCCG হলে নতুন সূত্রে ক্রম হবে TAACGGC।

৭. একটি ছাঁচ সুত্রের সম্পূরক নতুন সূত্র বিরতিহীন বা নিরবিচ্ছন্নভাবে বৃদ্ধি পেতে থাকে, একে বলে অগ্রগামী সূত্র বা Leading Strand । অপর নতুন সূত্রটি ধীরগতি বা খন্ড খন্ড ভাবে বৃদ্ধি পেতে থাকে। একে বলে ধীরগামী / পশ্চাৎগামী বা Lagging Strand ।

৮. Lagging Strand এর প্রতিটি খন্ডকে বলা হয় ওকাজাকি খন্ড (Okazaki Fragment)। লাইগেজ এনজাইম ওকাজাকি খন্ডগুলোকে যুক্ত করে। রেপ্লিকেশন সমাপ্ত হলে রেপ্লিকেশন কমপ্লেক্স বিচ্ছিন্ন হয়ে।

* এভাবে একটি DNA থেকে পূর্বানুরূপ দুইটি DNA অণুর সৃষ্টি হয়। সৃষ্ট দুইটি DNA এর উভয়টিতেই একটি সূত্র পুরাতন এবং অপরটি সূত্র নতুন থাকে। এজন্য একে অর্ধরক্ষণশীল প্রক্রিয়া বলে।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

+1 টি ভোট
2 টি উত্তর 761 বার দেখা হয়েছে
+2 টি ভোট
2 টি উত্তর 235 বার দেখা হয়েছে
+3 টি ভোট
2 টি উত্তর 6,200 বার দেখা হয়েছে
0 টি ভোট
1 উত্তর 467 বার দেখা হয়েছে
0 টি ভোট
1 উত্তর 203 বার দেখা হয়েছে

10,720 টি প্রশ্ন

18,363 টি উত্তর

4,729 টি মন্তব্য

240,170 জন সদস্য

29 জন অনলাইনে রয়েছে
1 জন সদস্য এবং 28 জন গেস্ট অনলাইনে
  1. Ayon Ratan Agni

    390 পয়েন্ট

  2. Al Moyaj Khondokar

    210 পয়েন্ট

  3. Vuter Baccha

    150 পয়েন্ট

  4. Mehedi_Bknowledge

    110 পয়েন্ট

  5. Monojit Das

    110 পয়েন্ট

বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় উন্মুক্ত বিজ্ঞান প্রশ্নোত্তর সাইট সায়েন্স বী QnA তে আপনাকে স্বাগতম। এখানে যে কেউ প্রশ্ন, উত্তর দিতে পারে। উত্তর গ্রহণের ক্ষেত্রে অবশ্যই একাধিক সোর্স যাচাই করে নিবেন। অনেকগুলো, প্রায় ২০০+ এর উপর অনুত্তরিত প্রশ্ন থাকায় নতুন প্রশ্ন না করার এবং অনুত্তরিত প্রশ্ন গুলোর উত্তর দেওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি। প্রতিটি উত্তরের জন্য ৪০ পয়েন্ট, যে সবচেয়ে বেশি উত্তর দিবে সে ২০০ পয়েন্ট বোনাস পাবে।


Science-bee-qna

সর্বাপেক্ষা জনপ্রিয় ট্যাগসমূহ

মানুষ পানি ঘুম পদার্থ - জীববিজ্ঞান এইচএসসি-উদ্ভিদবিজ্ঞান এইচএসসি-প্রাণীবিজ্ঞান পৃথিবী চোখ রোগ রাসায়নিক শরীর রক্ত আলো মোবাইল ক্ষতি চুল কী #ask চিকিৎসা পদার্থবিজ্ঞান সূর্য প্রযুক্তি প্রাণী স্বাস্থ্য বৈজ্ঞানিক মাথা গণিত মহাকাশ পার্থক্য এইচএসসি-আইসিটি #science বিজ্ঞান #biology খাওয়া শীতকাল গরম কেন #জানতে ডিম চাঁদ বৃষ্টি কারণ কাজ বিদ্যুৎ রাত রং উপকারিতা শক্তি লাল আগুন সাপ মনোবিজ্ঞান গাছ খাবার সাদা আবিষ্কার দুধ উপায় হাত মশা মাছ মস্তিষ্ক শব্দ ঠাণ্ডা ব্যাথা ভয় বাতাস গ্রহ স্বপ্ন রসায়ন তাপমাত্রা উদ্ভিদ কালো কি বিস্তারিত রঙ পা পাখি গ্যাস মন সমস্যা মেয়ে বৈশিষ্ট্য হলুদ বাচ্চা সময় ব্যথা মৃত্যু চার্জ অক্সিজেন ভাইরাস আকাশ গতি দাঁত আম বিড়াল কান্না নাক
...