হাঁটার জন্য সবচেয়ে উত্তম( বিজ্ঞান ভিত্তিক) জুতা কিভাবে সিলেক্ট করবো? - ScienceBee প্রশ্নোত্তর

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির প্রশ্নোত্তর দুনিয়ায় আপনাকে স্বাগতম! প্রশ্ন-উত্তর দিয়ে জিতে নিন পুরস্কার, বিস্তারিত এখানে দেখুন।

+8 টি ভোট
391 বার দেখা হয়েছে
"লাইফ" বিভাগে করেছেন (200 পয়েন্ট)

2 উত্তর

+2 টি ভোট
করেছেন (700 পয়েন্ট)

হাঁটার জন্য সর্বোত্তম জুতা যেভাবে নির্বাচন করবেনঃ-

১। আপনি সাধারণত যে মোজাজোড়া পরে হাঁটতে যান, সেই মোজাজোড়াই পরে জুতা কিনতে যাবেন অথবা মোজাজোড়া সাথে নিয়ে যাবেন।

২। সারাদিন কিছুক্ষণ হাঁটার পর জুতার দোকানে যাবেন, যখন আপনার পা স্বাভাবিক অবস্থাতে থাকবে।

৩। সেখান থেকেই জুতা কিনবেন যেটা জনপ্রিয় এবং যেখানে দক্ষ মানুষ থাকবে অথবা যেখানে আপনার কাছে অনেকগুলো অপশন থাকবে।

৪।জুতা বিক্রেতাকে আপনার দুই পায়ের মাপ নিতে বলবেন অথবা এমন কাউকে যে আপনাকে সাহায্য করতে পারবে। প্রত্যেকবার জুতা কেনার সময় পায়ের সাইজটা মেপে নিবেন, কারণ এটা চেঞ্জ হতে পারে।

৫। যদি আপনার একটি পা অন্যটির থেকে বড় হয়, তাহলে যে পা টি বড় সেটির মাপেই জুতা কিনবেন।

৬। এটি খেয়াল রাখবেন যেন জুতাজোড়া প্রশস্ত হয়।

+2 টি ভোট
করেছেন (110,050 পয়েন্ট)
সম্পাদিত করেছেন
শরীর কর্মক্ষম ও সুস্থ রাখতে সাতসকালে অথবা বিকেলে হাঁটার অভ্যাস আছে আমাদের অনেকেরই। পার্ক কিংবা বাড়ির কাছে খোলামেলা জায়গায় প্রতিদিন নিয়ম করে একটু হাঁটলে কিংবা দৌড়ালে দিনটি কিন্তু সুন্দরভাবেই শুরু হয়। তবে কোন জুতা পরে হাঁটছেন, সেটাও গুরুত্বপূর্ণ। এ ব্যাপারে বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যাটুকু জেনে নিন, আত্মতৃপ্তি নিয়ে হাঁটতে পারবেন।

রানিং কেডস ব্যবহার করছেন তো?
সকাল কিংবা বিকেল, দ্রুততার সঙ্গে অথবা ধীরে যেভাবেই হাঁটুন না কেন নিজের পায়ের সঠিক মাপ অনুযায়ী রানিং কেডস বা দৌড়ানোর উপযোগী বিশেষ জুতা পরে নিন। এ ধরনের জুতার ভেতরটা নরম, তাই হাঁটা ও দৌড়ানো দুই কাজেই ব্যবহার করতে পারবেন।
এ প্রসঙ্গে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থোপেডিক বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মো. কামরুল আহসান প্রথম আলোকে বলেন, আমাদের শরীরের বিভিন্ন অঙ্গপ্রত্যঙ্গ পরস্পর সম্পৃক্ত। সে ক্ষেত্রে পায়ের পাতা ভারসাম্য রক্ষা থেকে শুরু করে শরীরের বিভিন্ন অংশের মধ্যে যোগসূত্র তৈরি করছে। পায়ের পাতা হলো শরীরের স্পর্শকাতর অংশগুলোর একটি। তাই জুতা বাছাইয়ের ক্ষেত্রে খেয়াল রাখতে হবে যে জুতার সোল বা নিচের অংশ যেন নরম ও আরামদায়ক হয়। তা ছাড়া কেডস বা রানিং কেডস এমনভাবেই তৈরি করা হয়, যেন পায়ের পাতার নড়াচড়া বেশ সহজে সম্ভব হয়।
গ্রিনরোড এলাকার বাসিন্দা মো. রোকনুজ্জামান রানিং কেডস পরে ধানমন্ডি লেকে সকালে নিয়মিত হাঁটতে যান। হালকা ও নরম কেডসই তাঁর পছন্দ। তিনি বলেন, শক্ত জুতা পরে জোরে হাঁটা যায় না। এ সময় নমনীয় কেডসে বেশ স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি। একটু দামি হলেও স্বাচ্ছন্দ্যের জন্য তা বেশ কার্যকর।
গোড়ালি নিয়ে সাবধান
দ্রুত হাঁটা বা দৌড়ানোর সময় পায়ের গোড়ালিতে বাড়তি চাপ পড়ে। শরীরে এ অংশে রয়েছে অ্যাকিলিস টেন্ডনের অন্তর্ভুক্ত একটি বিশেষ শিরা। প্যারাটেনন নামক একটি পাতলা পর্দা শিরাটিকে ঢেকে রাখে। তাই একে রক্ষা করার জন্য গোড়ালির পেছন দিকটি অধিকতর নরম আচ্ছাদনে বাইরের আক্রমণ থেকে ঢেকে রাখা জরুরি। আচ্ছাদনটি শক্ত কিংবা অস্বস্তিকর হলে বারবার ঘষা লেগে সেখানে ঘা হয়ে যেতে পারে। তা ছাড়া কোনোভাবে ওই শিরা আক্রান্ত হলে হাঁটার ক্ষমতাই নষ্ট হয়ে যেতে পারে। তাই গোড়ালির পেছন দিকটি সুরক্ষিত থাকবে কি না, কেডস বাছাইয়ের সময় যাচাই করে নিন।
সব সময়ই আঁটসাঁট জুতা?
খোলামেলা জুতা পরলে পায়ের আকৃতি নষ্ট হয়ে যায়,এমন ধারণা ভুল। দৈনন্দিন জীবনযাপনে জুতা ব্যবহারে ভিন্নতা আনা অবশ্যই জরুরি। ডা. মো. কামরুল আহসান বলেন, একনাগাড়ে আঁটসাঁট জুতো ব্যবহার করলে পায়ের বুড়ো আঙুল বেঁকে যেতে থাকে। এর ফলে হ্যালাক্স ভালগাস নামের একটি রোগও হয়। তা ছাড়া পা ঘেমে অস্বস্তিকর অবস্থারও সৃষ্টি হয়। নিত্যদিনের ব্যবহারের জন্য চটি জুতাই সবচেয়ে বেশি উপযোগী। পায়ের আকৃতি ও সৌন্দর্য ধরে রাখতে চাইলে মাঝেসাঝে একটু আঁটসাঁট জুতা না হয় পরলেনই, তবে সব সময় নয়!
নারীদের জন্য বাড়তি সতর্কতা
ফ্যাশনসচেতন নারীদের মধ্যে উঁচু গোড়ালি বা হিলের জুতা পরার প্রবণতা বেশি। তবে এ ধরনের জুতা শরীরের ভারসাম্য ঠিকঠাকভাবে ধরে রাখতে পারে না। আর গোড়ালির শিরাগুলোতে বাড়তি চাপ তৈরির আশঙ্কাও থাকে। হিল-জুতা ব্যবহারকারী নারীদের চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হয় সবচেয়ে বেশি। একটু এদিক-সেদিক হলেই দুর্ঘটনায় পায়ের গুরুতর ক্ষতি হতে পারে।
সবশেষ কথা হলো, যে জুতা পরে নিজে সবচেয়ে বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করবেন, সেটিই ব্যবহার করুন। তবেই সুস্থ থাকবেন আপনি।

 

কী ধরনের জুতা

স্পোর্টস বা স্নিকার জুতাগুলো সাধারণত হাঁটা, দৌড় ও ব্যায়ামের জন্য ব্যবহার করা হয়। এসব জুতা একেবারেই ক্যাজুয়াল।

উপাদান

হাঁটার জুতাগুলোর সোল খুব হালকা হয়। এতে হাঁটা বা দৌড়ানোর সময় পা ভারী মনে হবে না। জুতার ভেতরে ব্যবহার করা হয় খুব নরম একধরনের ফোম। এটা পাকে আরামদায়ক অবস্থায় রাখে। ম্যারাথন বা পেশাগত দৌড়বিদদের জন্য রয়েছে এর চেয়ে বেশি মজবুত জুতা। যেহেতু বাইরে দৌড়ানোর জন্য, তাই এগুলোর ব্যবহারিক কাজ আরও বেশি হয়। নতুন কিছু জুতা বাজারে আসছে, যেগুলো ঘাম শোষণ করতে পারে কিংবা ঘাম হতে দেয় না। অনেক জুতাতে ঘৃতকুমারীর (অ্যালোভেরা) নির্যাস ব্যবহারও করা হয় এ জন্য।

যাঁরা পরেন

সাধারণত ১৫-৫৫ বছর বয়সীরা হাঁটা বা ব্যায়ামের জন্য জুতা কিনে থাকেন। এসব জুতা খেলাধুলা করার জন্যও ব্যবহার করেন অনেকে। মেদ ঝরানোর বাইরেও ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ ও শরীর সুস্থ রাখতে নিয়মিত হাঁটেন অনেকে। তাঁদের জন্য জুতা কেনা বাঞ্ছনীয়।

কোথায় কোন জুতা

নারীদের ফিতা ছাড়া হাঁটার জুতাগুলো ইদানীং খুব জনপ্রিয়। তবে এই জুতা বাইরে হাঁটার জন্য ঠিক আছে। ট্রেডমিলে দৌড়ানোর জন্য কিনতে হবে যেসব জুতায় ফিতা আছে, সেগুলো। নইলে দৌড়াতে গিয়ে হঠাৎ জুতা খুলে যেতে পারে। তবে ব্যায়াম করার জন্য যেকোনোটাই কিনতে পারেন।

ঋতুভেদে জুতা

বাইরের দেশে ঋতুভেদে জুতার উপাদানে পার্থক্য থাকলেও আমাদের দেশে নেই। আবহাওয়া অনুযায়ী আমাদের দেশের জুতাগুলো যেকোনো ঋতুর জন্য উপযোগী। সাধারণত এসব জুতার পরিচয় আসলে গ্রীষ্মকালীন। শীতে ভারী মোজা পরে নিলেই চলে। গরমে পাতলা মোজা দিয়ে পরা যাবে। মোজা ছাড়া জুতা পরা যাবে না, কথাটা ঠিক নয়। অনেকের পায়ে দুর্গন্ধ হয়। মোজা পরলে পায়ের দুর্গন্ধ মোজাতেই আটকে থাকবে। সেটা ধুয়ে নিতে পারবেন। কিন্তু মোজা ছাড়া জুতা পরলে পায়ের দুর্গন্ধ জুতাতে গিয়ে আটকাবে। সেই দুর্গন্ধ দূর করা মুশকিল!

প্রথম আলো

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

+8 টি ভোট
12 টি উত্তর 397 বার দেখা হয়েছে
02 জানুয়ারি 2021 "বিবিধ" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন EliusHHimel (10,040 পয়েন্ট)
+4 টি ভোট
1 উত্তর 53 বার দেখা হয়েছে
+9 টি ভোট
0 টি উত্তর 28 বার দেখা হয়েছে
+3 টি ভোট
2 টি উত্তর 1,083 বার দেখা হয়েছে

9,379 টি প্রশ্ন

15,656 টি উত্তর

4,546 টি মন্তব্য

123,719 জন সদস্য

70 জন অনলাইনে রয়েছে
4 জন সদস্য এবং 66 জন গেস্ট অনলাইনে
  1. Md. Ariful Haque

    1690 পয়েন্ট

  2. Maksud

    650 পয়েন্ট

  3. azratuni

    630 পয়েন্ট

  4. Jihadul Amin

    620 পয়েন্ট

  5. স্বপ্নিল

    560 পয়েন্ট

বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় উন্মুক্ত বিজ্ঞান প্রশ্নোত্তর সাইট সায়েন্স বী QnA তে আপনাকে স্বাগতম। এখানে যে কেউ প্রশ্ন, উত্তর দিতে পারে। উত্তর গ্রহণের ক্ষেত্রে অবশ্যই একাধিক সোর্স যাচাই করে নিবেন। অনেকগুলো, প্রায় ২০০+ এর উপর অনুত্তরিত প্রশ্ন থাকায় নতুন প্রশ্ন না করার এবং অনুত্তরিত প্রশ্ন গুলোর উত্তর দেওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি। প্রতিটি উত্তরের জন্য ৪০ পয়েন্ট, যে সবচেয়ে বেশি উত্তর দিবে সে ২০০ পয়েন্ট বোনাস পাবে।


Science-bee-qna

সর্বাপেক্ষা জনপ্রিয় ট্যাগসমূহ

মানুষ পানি ঘুম এইচএসসি-উদ্ভিদবিজ্ঞান এইচএসসি-প্রাণীবিজ্ঞান জীববিজ্ঞান রোগ চোখ পৃথিবী - শরীর পদার্থ রক্ত আলো মোবাইল কী ক্ষতি চিকিৎসা এইচএসসি-আইসিটি চুল পদার্থবিজ্ঞান মহাকাশ বৈজ্ঞানিক মাথা সূর্য প্রাণী পার্থক্য প্রযুক্তি স্বাস্থ্য কেন খাওয়া ডিম গরম রাসায়নিক কারণ #biology বৃষ্টি #জানতে শীতকাল রং বিজ্ঞান চাঁদ গণিত উপকারিতা কাজ বিদ্যুৎ আগুন লাল রাত সাদা সাপ #ask দুধ উপায় ব্যাথা শক্তি খাবার গাছ ভয় আবিষ্কার মশা মনোবিজ্ঞান মাছ হাত শব্দ ঠাণ্ডা কি গ্রহ কালো বৈশিষ্ট্য সমস্যা উদ্ভিদ মস্তিষ্ক রঙ পা হলুদ স্বপ্ন মন রসায়ন মেয়ে বাতাস ভাইরাস #science আম পাতা ব্যথা মৃত্যু দাঁত আকাশ কান্না পাখি চার্জ গ্যাস ঔষধ বিস্তারিত হরমোন বিড়াল তাপমাত্রা নাক ফোবিয়া
...