ডান/বাম,কোন লেন উপযুক্ত?গাড়ি চালানোর ক্ষেত্রে কোন লেন বেশি ব্যবহার করা হয়?

আপনারা হয়তো লক্ষ্য করে থাকবেন কোন কোন দেশ বাম লেন দিয়ে গাড়ি চালায় আবার কোন কোন দেশ ডান লেন দিয়ে গাড়ি চালায়।

কখনো কি মনে হয়না এরকম পার্থক্য হওয়ার কারণ কি! ড্রাইভার কোন দিকে বসবে এবং কোন দিকের লেন ব্যবহার করবে, এই রীতির প্রচলন কবে থেকে, কারা এর প্রচলন করেন, তা কিন্তু অনেকেরই অজানা। চলুন জেনে নেওয়া যাক।

ধারনা করা হয় এর প্রচলন প্রথম শুরু করে রোমানরা। রোমানরা তাদের বিশাল সাম্রাজ্যে শুধু দালান-কোঠাই নয়, তৈরি করেছিল সুপরিকল্পিত সড়ক ও মহাসড়ক। তাই তখন তাদের দরকার হয় সড়ক পরিচালনার জন্য সুষ্ঠু নিয়ম-নীতি।

মধ্যযুগের সড়কগুলো ছিল অনিরাপদ। তাই তখন চালকরা গাড়ির বাম দিকে বসতো, যাতে প্রয়োজনের সময় ডান হাতের সাহায্যে অস্ত্রের ব্যবহার করতে পারে। তা ছাড়া তখন অশ্মারোহীরাও তাদের বাম হাতে রাখত ঘোড়ার লাগাম, যাতে ডান হাতের সাহায্যে পথে দেখা হওয়া পরিচিতজনদের সঙ্গে সহজেই করমর্দন করতে পারে।

এভাবেই চালকের বাম দিকে অবস্থান এবং বাম হাতের সাহায্যে নিয়ন্ত্রণের ব্যাপারটা ছড়িয়ে পড়ে সাধারণ জনগণেনর মধ্যে। ১৩শ খ্রিষ্টাব্দের দিকে এই রীতিটি আরো জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। পোপ অষ্টম বোনিফেস রোমে পবিত্র যাত্রা করতে ইচ্ছুক সবাইকে বাম দিকে বসার রীতি মেনে আসার নির্দেশ দিয়েছিলেন। সেই থেকে শুরু করে ১৭শ খ্রিষ্টাব্দের শেষ দিক পর্যন্ত বেশির ভাগ পাশ্চাত্যের দেশগুলোতে এটি জনপ্রিয় ছিল।

১৮শ শতকের দিকে যুক্তরাষ্ট্রেও এই ব্যবস্থাটি পাকাপোক্ত হয়। তখন বিরাট বিরাট মালবোঝাই গাড়ি রাস্তায় চলত। তার সঙ্গে থাকত ১৫-২০টি ঘোড়ার বহর। সেই সময় ওইসব ঘোড়ায় টানা মালবাহী গাড়িতে চালকের জন্য কোনো বসার স্থান রাখা হতো না। তাই চালক সর্ব বামে থাকা ঘোড়ার পিঠে বসে তার বাম হাতের সাহায্যে ঘোড়ার লাগাম নিয়ন্ত্রণ করত। আর ডান হাতে থাকা লাঠির সাহায্যে বাকি ঘোড়াগুলোকে নিয়ন্ত্রণ করত।

আর এই ব্যাপারটি নির্ধারণ করে দিল যে রাস্তার কোন দিক ব্যবহার করবে গাড়ির চালক। চালক বাম দিকে বসায় স্বাভাবিকভাবেই তার বাম দিক থেকে আসা গাড়িটি ভালোভাবে দেখতে পেত। আর যেকোনো সংঘর্ষ থেকে নিজের গাড়িকে খুব সহজেই রক্ষা করতে পারত। তাই চালকেরা রাস্তার ডান দিক ধরে গাড়ি চালাত। আর বাম দিক দিয়ে আসত অপর পাশের গাড়ি।
১৮শ শতকের শেষের দিকে পুরো যুক্তরাষ্ট্রে এই নিয়মটি জনপ্রিয়তা পেল। ১৭৯২ সালে যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভ্যানিয়ায় প্রথম এই নিয়মের পক্ষে আইন পাশ হয় এবং দ্রুতই কানাডা ও পুরো যুক্তরাষ্ট্রে এই আইন ছড়িয়ে পড়ে।

ফ্রান্সের মাধ্যমে ইউরোপে এই নিয়মটির সূচনা হয়। ফ্রান্সে বাম দিক ধরে গাড়ি চালানোর নিয়ম প্রচলিত ছিল। কিন্তু কেন ফ্রান্স সেই প্রচলিত নিয়ম ত্যাগ করল তার সঠিক কারণ জানা যায়নি। ধারণা করা হয়, ফরাসি বিপ্লবের পর পোপ কর্তৃক সকল প্রকারের নিয়ম ত্যাগ করার উদ্দেশ্যে তারা তাদের প্রচলিত নিয়মটি ত্যাগ করে।
কারো মতে, এর প্রচলন করেছিলেন নেপোলিয়ন। তিনি যেসব দেশ জয় করেছিলেন, সেসব দেশেও এই নিয়ম চালু করেছিলেন। তার মধ্যে একটি হচ্ছে জার্মানি। বিংশ শতাব্দিতে জার্মানি তার দখলকৃত ইউরোপের অন্যান্য দেশগুলোতেও এই নিয়ম চালু করে।

তবে ইংল্যান্ডে তখনও প্রচলিত ছিল বাম দিক ধরে গাড়ি চালানোর পদ্ধতি। ১৭৫৬ সালে ব্রিটেনে এই সম্পর্কিত আইন পাশ হয়। যেহেতু পৃথিবীর বেশির ভাগ অঞ্চলেই ব্রিটিশদের রাজত্ব ছিল, তাই এই নিয়মটি বিশ্বের অধিকাংশ দেশে চালু হয়েছিল।

বিশ্বের মাত্র ৩৫% দেশ বাম লেন দিয়ে গাড়ি চালায়। বাম লেন ব্যবহার করতে দেখা যায় মূলত ইংল্যান্ড, অষ্ট্রেলিয়া, ভারত, বাংলাদেশসহ আর কিছু দেশে। তবে ইংল্যান্ড ছাড়া ইউরোপের অন্যান্য দেশসহ আমেরিকা এবং আফ্রিকা মহাদেশের অধিকাংশ দেশে দেখা যায় রাস্তার ডান দিক দিয়ে গাড়ি চালাতে।