নতুন ভিডিও অ্যাপ, টিকটকের পর জনপ্রিয় হতে পারে বাইট

ভাইন এর অনুরূপ নতুন একটি অ্যাপ প্রকাশের ঘোষণা দিয়েছে ভাইন এর সহ নির্মাতা ডোম হফম্যান। গত শুক্রবার সন্ধ্যায় বাইট প্রকাশের ঘোষণা দেওয়া হয়। ভাইনের ভক্তদের মতে ভাইন অ্যাপটি ভাইন ২.০ হিসেবেই বেশি সমাদৃত।

বাইট অ্যাপটি বেশ কিছুদিন ধরে বিটা নামে ব্যবহার হচ্ছিল। তবে অ্যাপ নির্মাতা অ্যাপটি টুইটারের কাছে বিক্রি করে দেওয়ার পর অ্যাপটির নাম হয় বাইট। বাইট অ্যাপটি যখন টেস্টিং মোড হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছিল, তখন এটি বিটা নামেই পরিচিত ছিল।


ভাইন ব্যবহারকারীরা দীর্ঘ সময় ধরেই এর অনুপস্থিতি অনুভব করছিল। এর আগে হফম্যান বাইট অ্যাপটি চালু এবং বন্ধ করেছিলেন। ২০১৮ সালে হফম্যান ভাইন এর অনুরূপ ভাইন ২.০ ভার্শন বাজারে আনার ঘোষণা দিয়েছিল কিন্তু তা কয়েক মাস পর বাতিল করা হয়। তবে হঠাৎ বাইট অ্যাপটি প্রকাশ করার ঘোষণাটি ভাইন এর ভক্তদের তাক লাগিয়ে দেয়।

ভাইন এর মতই ৬-সেকেন্ড সময় নির্ধারণ করা হয়েছে বাইট অ্যাপটিতে। ক্যামেরা রোল থেকে আপলোড বা কোন কিছুর ক্যাপচার করতে বাইট ক্যামেরা ব্যবহার করে আপনি ৬ সেকেন্ডের ভিডিও লুপে হারিয়ে যেতে পারেন। আপনি চাইলে ধারণ করা ভিডিওগুলো নানা ভাবে এডিট করে আপলোড করতে পারেন।

বাইটে কিছু ভিডিও সেকশন রয়েছে। যেমন: comedy, animation, chil, pets, arts, experimental, weird, gaming, fitness, sports ইত্যাদি।

Image result for vine vs byte

বাইটে একটি নতুন প্রোফাইলে লগইন করার পরই কেবলমাত্র আপনি বাইট অ্যাপটি ব্যবহার করতে পারবেন। আপনি আপনার ভিডিও গুলো ক্যাটাগরী অনুসারে আপলোড করতে পারেন। তবে একটি বিশেষ দিক হল, আপনি চাইলেই আরেকজন ব্যক্তির প্রোফাইলে সেই ব্যক্তির কতজন ফলোয়ার আছেন সেটা দেখতে পারবেন না।

বাইট অ্যাপে রিবাইট করার ব্যবস্থা আছে। এতে করে আপনি অন্য কোন ভিডিওকে নিজের প্রোফাইলে পুনরায় আপলোড করতে পারবেন। বাইটের নির্মাতা বলেন, অ্যাপটিতে নতুন নতুন আকর্ষণীয় সংযোজন সামনে আসবে।

সংস্থাটি এক বিবৃতিতে টুইটারে জানায় যে,” বাইট একটি সুপরিচিত এবং নতুন অ্যাপ। এবং আমরা আশা করি, যারা ভাইনের অনুপস্থিতি অনুভব করছিলেন বাইট অ্যাপটি তাদের অনুপ্রাণিত করবে”। কেননা বাইটের ফরমেটটি আসলে অনেকটা ভাইনের মতোই। যেখানে ভাইনের মত ৬-সেকেন্ডের ভিডিওগুলো আপলোড করা হয়।

বহুল পরিচিত টিকটক এখন বাইটের সবচেয়ে বড় প্রতিদ্বন্দ্বী। প্রথমবার যখন ভাইন বন্ধ হয়ে যায় তখন অসংখ্য প্রতিযোগী সংক্ষিপ্ত ভিডিও ক্ষেত্রে জায়গা করে নিয়েছিল যেমন সাড়া জাগানো অ্যাপ টিকটক।

Image result for vine vs byte

টেকক্রাঞ্চ এর সাথে একটি সাক্ষাৎকারে হফমান বলেছেন, অ্যাপটিতে content creator কে অর্থ প্রদানের জন্য তারা চিন্তাভাবনা করছে এবং সেই ব্যাপারে কাজ করছেন। এক্ষেত্রে তারা পাইলট ভার্শন (যা পার্টনারশিপ প্রোগ্রাম) মাধ্যমে অর্থ প্রদানের ব্যবস্থা চালু করতে পারে।

যার ফলে বাইটের ব্যবহার আরও বেশি বৃদ্ধি পাবে। টেকক্রাঞ্চ জানায়, হফমান তার ভিডিও নির্মাতাদের অর্থ উপার্জনের সহায়তা করার দিকে মনোনিবেশ করে অ্যাপটিকে সামনে দাঁড় করানোর জন্য পরিকল্পনা করছেন।

টিকটক ব্যবহারকারীদের জন্য বাইট প্রায়ই একই রকম সামাজিক মাধ্যম। অ্যাপ্লিকেশনটি বর্তমানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা,ইউরোপের কিছু অংশ,রাশিয়া,তাইওয়ান,হংকং এবং জাপানসহ ৪০ টির বেশি দেশে ব্যবহার করা যাচ্ছে। তবে টিকটকের মূল সংস্থার দেশ চীনে বাইটের ব্যবহার এখনো শুরু করা হয়নি।

বাইটের নির্মাতা বলেন, অ্যাপটি সময়ের সাথে সাথে দেশের তালিকা গুলোকেও প্রসারিত করবে। অ্যাপ্লিকেশন স্টোরে বাইট এর বিবরণ পড়তে গিয়ে দেখা যায় তারা বলেন,”আমাদের নস্টালজিয়া আমাদের সূচনা পয়েন্ট তবে আমরা কোথায় যাব তা এখন আপনাদের উপর নির্ভর করবে”।

বর্তমানে অ্যাপটির আইওএস এবং অ্যান্ড্রয়েড এ পাওয়া যাচ্ছে। দেখা যাক নতুন এই সুপরিচিত অ্যাপটি মানুষকে কতটা আনন্দ দিতে পারে এবং অ্যাপটি কতদূর যেতে পারে।